আজকাল ওয়েবডেস্ক: ক্যাপিটলকাণ্ডের পর ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট পাকাপাকিভাবে বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় কোম্পানি। ওই অভূতপূর্ব সিদ্ধান্ত নেওয়ার তালিকায় সর্বপ্রথম ছিলেন টুইটারের প্রধান আইনজীবী, বিজয়া গাড্ডে। ৪৫ বছরের এই ভারতীয়–মার্কিনী টুইটারের লিগ্যাল, পাবলিক পলিসি অ্যান্ড ট্রাস্ট অ্যান্ড সেফটি–র প্রধান। গত শুক্রবার টুইট করে নেটিজেনদের গাড্ডে জানিয়ে দেয় আরও কোনও হিংসাত্মক ঘটনা এড়াতে স্থায়ীভাবে ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করছে টুইটার। বন্ধ হওয়ার সময়ও ট্রাম্পের ৮৮.‌৭ মিলিয়ন ফলোয়ার ছিল।
হায়দরাবাদে জন্মানোর পর শিশুবয়সেই বাবা, মায়ের সঙ্গে আমেরিকা পাড়ি দেন গাড্ডে। টেক্সাস এবং নিউ জার্সিতে কেটেছে ছোটবেলা। নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ ল থেকে জুরিস ডক্টর ডিগ্রি এবং কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিল্প এবং শ্রম বিষয়ক নিয়ে স্নাতক গাড্ডে টুইটার কোম্পানিতে যোগ দেন ২০১১ সালে। এর আগে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার একটি ল ফার্ম এবং জুনিপার নেটওয়র্ক নামে একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকরি করতেন। ফাঁকা সময়ে ছোটদের গল্পের বই পড়তে, রান্না করতে এবং বেড়াতে ভালোবাসেন। টুইটারের সিইও–র অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ গাড্ডে বরাবরই অতি সাধারণভাবে তাকতে পছন্দ করেন। ২০১৯–এ ওভাল অফিসে টুইটার কোম্পানির প্রধান জ্যাক ডর্সির সঙ্গে দেখা করেন ট্রাম্প। সেসময় ডর্সির পাশে ছিলেন শুধু গাড্ডে।    টুইটারের সদর দপ্তরে দুজনেরই বসার স্থান পাশাপাশি। কোম্পানি সূত্রে খবর, গাড্ডের কোনও কথায় না বলেন না ডর্সি। কোনও গুরুতর অবস্থায় ডর্সি প্রেসিডেন্টের মতো আদেশ করেন এবং গাড্ডে যুগ্ম প্রধানের চেয়ারম্যানের ভূমিকা নেন।     

জনপ্রিয়

Back To Top