আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌একদিন আগেই ব্যাঙ্কের ঋণ শোধ করে দেওয়ার কথা বলেছিলেন৷ আর একদিন পরেই সুর চড়িয়ে তাঁর দাবি অগাস্তা ওয়েষ্টল্যাণ্ড চপার কাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত ক্রিশ্চিয়ান মিশেলের প্রত্যার্পণের সঙ্গে তাঁর বিষয় গুলিয়ে ফেললে চলবে না৷ ভারত যেন কোনও ভাবেই এই দুটি ঘটনাকে এক করে না ফেলে। টুইট করে বৃহস্পতিবার এমনটাই জানিয়েছেন ফেরার ব্যবসায়ী বিজয় মালিয়া। 
নিজের জায়গায় অনড় লিকুউর ব্যারন বিজয় মালিয়া বৃহস্পতিবার ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষদের আবেদন করে তাঁর টুইটে জানান যে তাঁর প্রস্তাব গ্রহণ করে নেওয়া হোক এবং যে পরিমাণ অর্থ তিনি ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নিয়েছিলেন তা তিনি ফেরত দিতে চান। কিন্তু সেই টাকা বিজয় মালিয়া চুরি করেননি, তাঁকে যেন চোর অ্যাখা না দেওয়া হয়। এমনটাই দাবি ফেরার ব্যবসায়ীর। বিজয় মালিয়া টুইটে বলেন, ‘‌শ্রদ্ধেয় সমস্ত টিপ্পনীকারিদের উদ্দেশ্যে জানাই, আমার প্রত্যাবর্তনের সিদ্ধান্তের সঙ্গে কেন সম্প্রতি দুবাই থেকে যাকে নিয়ে আসা হয়েছে, তার সঙ্গে গুলিয়ে ফেলা হচ্ছে। আমি শারীরিকভাবে যেখানেই থাকি না কেন, আমার আবেদন একটাই, দয়া করে টাকা ফিরিয়ে নিন। আমি টাকা চুরি করেছি এ ধরনের ব্যাখা আমি আর শুনতে প্রস্তুত নই।’‌ 
বুধবার একই আবেদন করে টুইট করেন বিজয় মালিয়া। বিজয় মালিয়া জানিয়েছিলেন, ঋণের আসল টাকা ব্যাঙ্কদের শোধ করে দেওয়া হবে৷ লন্ডন থেকে টুইটারে এই প্রস্তাব দেন এই ঋণ খেলাপি ব্যবসায়ী৷ ঋণ নিয়ে টাকা ফেরৎ না দেওয়া সহ তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা বলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করেন তিনি। তাঁর দাবি, প্রায় লুপ্ত হয়ে যাওয়া কিংফিসার বিমান সংস্থার বিমানের জ্বালানি তেলের খরচ যোগাতেই তিনি মোটা অর্থের ঋণ ব্যাঙ্কগুলি থেকে নিয়েছিলেন। ব্যাঙ্ক থেকে ন’‌হাজার কোটি ঋণ নেওয়ার পর তা ফেরত না দিয়েই ২০১৬ সালের মার্চ মাসে ভারত ছাড়েন বিজয় মালিয়া। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে তাঁকে ভারতে প্রত্যাবর্তনের জন্য বলা হয়। গত দু’‌বছর ধরে ব্রিটেন আদালতে তাঁর প্রত্যাবর্তন নিয়ে আইনি লড়াই চলছে। 


 

জনপ্রিয়

Back To Top