আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ গুহা থেকেই মা, বাবাকে চিঠি পাঠাল থাইল্যান্ডের কিশোর ফুটবলাররা। শনিবার স্থানীয় সময় সকালে বাচ্চাদের হাতে লেখা সেই চিঠি নিজেদের ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছে থাই নৌসেনা। যা দেখে চোখের জল চেপে রাখতে পারেননি কিশোরদের মা, বাবা থেকে কঠোর নৌসেনার অফিসাররাও। নিজেদের কুশলতার খবর জানিয়ে, কেউ মা, বাবার কাছে আবদার করেছে গুহা থেকে উদ্ধার হওয়ার পর ফ্রায়েড চিকেন খাবার জন্য। তো কেউ আবদার করেছে পর্ক শাবোর। কোনও চিঠিতে গুহার ভিতর ঠান্ডার কথা উল্লেখ করেছে কেউ তো কেউ বাবাকে লিখেছে, বাড়ি ফিরে বাবাকে দোকানে ক্রেতা সামলাতে সাহায্য করবে এরপর থেকে। তবে প্রতিটি চিঠিতেই সবাই তাদের মা, বাবাকে ভালোবাসা জানিয়েছে। ওয়াইল্ড বোর ফুটবল দলের কোচ এক্কাপোল চান্তাওয়ং সব কিশোরদের অভিভাবকদের কাছে চিঠি লিখে তাঁদের সন্তানদের এই বিপদে ফেলার জন্য ক্ষমা চেয়েছে বলেছেন, তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করবেন সবাইকে রক্ষা করার।

পাশে থেকে সাহস জোগানোর জন্য সবাইকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন এক্কাপোল। 
এদিকে কোচ সহ কিশোরদের সুস্থভাবে বের করতে আনতে জোরকদমে চেষ্টা চালাচ্ছে উদ্ধারকারী দল। শনিবার উদ্ধারকারী দলের প্রধান জানান, ইতিমধ্যেই ওই গিরিগুহার মধ্যে ড্রিল করে ১০০টি চিমনি ঢোকানো হয়েছে। ওই চিমনি দিয়ে কিশোররা যেমন টাটকা অক্সিজেনও পাবে তেমনই প্রয়োজনে ওই চিমনির নল দিয়েই তাদের উদ্ধার করে আনার পরিকল্পনাও রয়েছে উদ্ধারকারী দলের। কারণ জল বাড়তে থাকলে গুহার নিচ দিয়ে তাদের বের করে আনা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাবে। কয়েকটি চিমনি গুহার ৪০০ মিটার গভীর পর্যন্ত চলে গিয়েছে। কিন্তু তাও কিশোরদের সন্ধান মেলেনি। উদ্ধারকারীরা মনে করছেন তারা প্রায় ৬০০ মিটার বা তারও গভীরে আটকা পড়ে আছে। অক্সিজেনের যাতে সমস্যা না হয় সেজন্য অতিরিক্ত উদ্ধারকারীদের গুহা থেকে বের করে আনা হয়েছে। গুহার তিন নম্বর বেসিনে পৌঁছেছেন ডাইভাররা।

থাইল্যান্ড ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা, ইংল্যান্ড এবং চিনের দক্ষ ডাইভারদের আনা হয়েছে। উদ্ধারকারীদের পরিকল্পনা অনুযায়ী, থাই ডাইভারদের নেতৃত্বে চিন, অস্ট্রেলিয়ার ডাইভাররা কিশোরদের বের করে নিয়ে আসবে এবং আমেরিকার ডাইভাররা অক্সিজেন পাম্প করবেন। শনিবার থেকেই এই উদ্যোগ নেওয়া হবে। এদিন সকালেই এব্যাপারে থাই প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছে থাই সেনা।
গত ২৩ জুন বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচতে লুয়াং নাং নং গুহাশ্রেণির একটি গুহার ভিতর ঢুকে আটকে পড়ে ওয়াইল্ড বোর ফুটবল দলের ১২ জন কিশোর এবং তাদের ২৫ বছর বয়স্ক কোচ এক্কাপোল চান্তাওয়ং। ১০ দিন পর গত সোমবার গভীর রাতে তাদের ওই গুহার ভিতর প্রথম দেখতে পান ব্রিটিশ উদ্ধারকারী দলের ডাইভাররা। এরপরই তাদের উদ্ধারের চেষ্টা শুরু হয়। কিন্তু গুহা এবং সংলগ্ন এলাকা জলে ডুবে থাকায় এবং কিশোরদের বেশিরভাগই সাঁতার না জানায় তাদের গুহা থেকে বের করে আনা সম্ভব হচ্ছে না।        

জনপ্রিয়

Back To Top