Texas Shooting: বারবার হেনস্থার শিকার হয়ে স্কুলছুট, প্রতিশোধ নিতেই কি টেক্সাসের স্কুলে হামলা!‌

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বাড়িতে অশান্তি ছিল।

মায়ের সঙ্গে ঝামেলা লেগেই থাকত। স্কুলেও সমস্যা ছিল অনেক। সে কারণেই কি টেক্সাসের স্কুলে ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালাল ওই কিশোর!‌ তার পর পুলিশের গুলিতে নিজেও মারা গেল সালভাদোর রোলান্ডো রামোস। মাত্র ১৮ বছর বয়সে। খুনের কারণ নিয়ে ধন্দে মার্কিন পুলিশ।
তদন্তকারীরা রামোসের সহকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেছেন। কেউই তার বিষয়ে খুব বেশি কিছু জানতেন না। নিজেকে নিয়ে কখনওই খোলাখুলি কথা বলত না। ওয়েন্ডি নামে একটি রেস্তোরাঁর চেনে কাজ করত সে। নাইট ম্যানেজার হিসেবে। টেক্সাসের রব স্কুলে ঢুকে ভয়ঙ্কর কাণ্ড ঘটায়। তাতে ১৯ জন পড়ুয়া সহ ২১ জন মারা যায়। 
ওই স্কুলের দু’‌–এক জন পড়ুয়ার অভিভাবক রামোসকে চেনেন। তার পরিবারকেও চেনেন। তাঁদের কথায়, প্রায়ই রেগে যেত কিশোর। মায়ের ওপর চোটপাট করত। তা বলে এ রকম হিংসাত্মক কাজ করতে পারে, তা ভাবতে পারেননি কেউ। আত্মীয়রা জানিয়েছেন, এক বার দিদিমার বাড়িতে গিয়ে তাঁর গায়ে হাত তোলেন। প্রৌঢ়া আহত হন। 

 

 

Kapil Sibal: ‌কংগ্রেস ছাড়লেন বিক্ষুব্ধ নেতা কপিল সিবল, অখিলেশের সমর্থনে নির্দল প্রার্থী হিসেবে রাজ্যসভায় মনোনয়ন পেশ 
মায়ের ওপর বরাবর রাগ করত কিশোর। সম্পর্ক একেবারে ভালো ছিল না। জানা গিয়েছে, তার মা মাদকাসক্ত ছিলেন। সেই নিয়ে ছোট থেকে খুব চাপে থাকত কিশোর। হেনস্থার শিকার হত। একাকিত্বে কেটেছে গোটা ছোটবেলা। স্কুলেও বিষয়টি সহজ ছিল না। এক আত্মীয় জানিয়েছেন, কথা বলায় সমস্যা ছিল। সে কারণে স্কুলে নিয়মিত হেনস্থা করা হত তাকে। সহপাঠীরা ঠাট্টা করত। আর রাগে সে ঝাঁপিয়ে পড়ত তাদের ওপর। কোনও বন্ধু ছিল না। এসব কারণে বাধ্য হয় স্কুল ছাড়তে। সেই বদলা নিতেই কি এই কাণ্ড!‌ খতিয়ে দেখছে তদন্তকারীরা। 
 

আকর্ষণীয় খবর