Russia: সেনা সমাবেশ ও বাহিনীতে যোগ দেওয়ার ভয়ে দেশ ছাড়ছেন রাশিয়ার নাগরিকেরা!

আজকাল ওয়েবডেস্ক: ইউক্রেনে যুদ্ধে যাওয়ার জন্য বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) তিন লক্ষ রিজার্ভ সেনা সমাবেশ করার ঘোষণা করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

পুতিনের এমন ঘোষণার পর, রাশিয়া ছাড়ার হিড়িক পড়েছে দেশটির মানুষের মধ্যে। দেশটির সমস্ত ফ্লাইটের টিকিট ইতিমধ্যেই বিক্রি হয়ে গেছে। 
দেশত্যাগের জন্য রাশিয়ার সীমান্তে দীর্ঘ সারি তৈরি হয়েছে। তবে ক্রেমলিন বলছে, যুদ্ধ করতে সক্ষম ব্যক্তিরা দেশ ত্যাগ করছে বলে যেসব খবরাখবর প্রকাশিত হচ্ছে সেগুলো অতিরঞ্জিত। কিন্তু রাশিয়া-জর্জিয়ার সীমান্তে দেখা যায় গাড়ির সারি কয়েক মাইল পর্যন্ত দীর্ঘ হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট পুতিনের ঘোষণা পরপরই তিনি শুধু পাসপোর্ট সঙ্গে নিয়ে দ্রুত বাড়ি থেকে বেরিয়ে বর্ডারের দিকে রওনা দেন।
তিনি কোনও জামা-কাপড়ও নেননি। সে ব্যক্তি আশঙ্কা করছেন, রিজার্ভ সৈন্য হিসেবে যাদের যুদ্ধে পাঠানো হবে তিনি সে দলে পড়ে যেতে পারেন। কিছু প্রত্যক্ষদর্শী বলছেন, আপার লারস সীমান্ত চেকপয়েন্টে গাড়ির সারি পাঁচ কিলোমিটার পর্যন্ত দীর্ঘ হয়েছে। একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কিছু চালক তাঁদের গাড়ি সেই দীর্ঘ সারিতে রেখে চলে যাচ্ছেন।
রাশিয়া থেকে জর্জিয়া যেতে কোনও ভিসার প্রয়োজন হয় না। এছাড়া রাশিয়ার সঙ্গে ফিনল্যান্ডের ১ হাজার ৩০০ কিলোমিটার সীমান্ত আছে। তবে ফিনল্যান্ডে যাওয়ার ক্ষেত্রে রাশিয়ানদের ভিসার প্রয়োজন হয়।
ফিনল্যান্ডও বলছে, তাদের সীমান্ত দিয়েও রাশিয়ানদের আসা গতরাতে বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে সেটি এখনও সামাল দেওয়ার পর্যায়ে আছে। রাশিয়া থেকে ইস্তানবুল, বেলগ্রেড এবং দুবাই যাওয়ার জন্যও অনেকে বিমানের টিকিট কিনেছেন।
প্রেসিডেন্ট পুতিন রিজার্ভ সৈন্য তলবের পরপরই এসব জায়গায় যাওয়ার জন্য বিমানের টিকিটের দাম ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। কোনও কোনও গন্তব্যের টিকিটি সম্পূর্ণ বিক্রি হয়ে গেছে। 
তুরস্কের বিভিন্ন গণমাধ্যম রিপোর্ট করেছে যে রাশিয়া থেকে তুরস্কে আসার ওয়ান ওয়ে টিকিটের চাহিদা এবং দাম দুটোই ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। অন্যদিকে জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, যুদ্ধ এড়িয়ে যেতে যেসব রাশিয়ান দেশ ছাড়ছেন তাঁরা জার্মানিতে স্বাগত।
কিন্তু লিথুয়ানিয়া, লাটভিয়া, এস্তোনিয়া এবং চেক রিপাবলিক অন্য কথা বলছে। তারা জানিয়েছে, রাশিয়া থেকে পালিয়ে আসা ব্যক্তিদের তারা আশ্রয় দেবে না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাশিয়ার একজন পিএইচডি ছাত্র বিবিসিকে বলেছেন, তাঁকে এরই মধ্যে ‘রিজার্ভিস্ট’ হিসেবে ডাকা হয়েছে।

আকর্ষণীয় খবর