Russia: পশ্চিমী দুনিয়ার মুখে কালি!‌ ইউক্রেন সীমান্ত থেকে সেনা সরিয়ে আনল রাশিয়া

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পশ্চিমী দুনিয়ার মুখে প্রায় চুন কালি লেপে দিল রাশিয়া।

তারা নিজেরা অন্তত কটাক্ষ করে সে রকমই বলছে। আমেরিকা, ইউক্রেন এক প্রকার নিশ্চিত ছিল, ইউক্রেনে হামলা করেই ফেলবে রাশিয়া। সেজন্যই ইউক্রেন সীমান্তে মোতায়েন করেছে বাহিনী। সীমান্ত থেকে এবার কয়েক হাজার সেনা সরিয়ে নিল রাশিয়া। তবে কি বরফ গলছে!‌ বিশেষজ্ঞরা তেমনই বলছেন। যদিও এখনও প্রায় ১০ হাজার রুশ সেনা রয়েছে ইউক্রেন সীমান্তে।
এদিন রাশিয়ান সংবাদ মাধ্যম জানাল, কর্তব্য সেরে সীমান্ত থেকে দেশে নিজেদের ঘাঁটিতে ফিরে এসেছে রুশ সেনা। বিষয়টি নিয়ে পশ্চিমী দুনিয়াকে কটাক্ষ করতে ছাড়ল না রাশিয়ার বিদেশ মন্ত্রক। মন্ত্রকের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা জানালেন, ‘‌১৫ ফেব্রুয়ারি ইতিহাসের পাতায় লেখা থাকবে। কারণ এদিন পশ্চিমী দুনিয়ার যুদ্ধের প্রোপাগান্ডা ব্যর্থ হল।’‌ তিনি আরও খোঁচা দিয়ে বললেন, যে একটা গুলি ছাড়াও লজ্জায় ডুবল পশ্চিমী দুনিয়া। 
তবে ইউক্রেন সীমান্ত থেকে কত ইউনিট সেনা সরানো হয়েছে, এখনও সেখানে কত ইউনিট রয়েছে, কিছু জানা যায়নি। ম্যাক্সার টেকনোলজি সংস্থা কিছু উপগ্রহ চিত্র প্রকাশ করে। তাতে দেখা যায়, ইউক্রেন সীমান্তের আশপাশে সেনা, অস্ত্রশস্ত্র মজুত করেছে রাশিয়া। তাঁবু খাটিয়ে ঘাঁটি গড়ার ছবিও প্রকাশ্যে এসেছে। সেই থেকেই শুরু হয় বিতর্ক। আমেরিকা, ব্রিটেন সহ পশ্চিমের দেশগুলো অভিযোগ করে, ইউক্রেনে হামলা করতে চায় রাশিয়া। 

UP Farmer: কৃষকদের গাড়ি চাপা দিয়ে খুন!‌ অভিযুক্ত সেই মন্ত্রীর ছেলের জেল থেকে মুক্তি


যদিও রাশিয়া সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দাবি করে, বেলারুস, ক্রাইমিয়া সহ অন্য দেশে নিত্য অনুশীলনের জন্য পাঠানো হয়ে সেনা। ব্রিটেনের বিদেশ সচিব স্পষ্ট জানিয়ে দেন, সেনা সীমান্ত থেকে না সরানো পর্যন্ত এসব দাবি মানবেন না তিনি। ইতিমধ্যে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভ থেকে ভারতীয় পড়ুয়া, নাগরিকদের দেশে ফেরার কথা বলেছে ভারতীয় দূতাবাস। সাময়িকভাবে সেদেশ ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। 
রাশিয়াকে বারবার হুঁশিয়ারি দিয়েছে আমেরিকা। প্রেসিডেন্ট বাইডেন রুশ প্রেসিডেন্ট পুটিনকে ফোনও করেছেন। সূত্রের খবর, পুতিনকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বাইডেন বলেছেন, রাশিয়া যদি আক্রমণের দিকে আর এক পাও বাড়ায় তবে ওয়াশিংটন তার সমস্ত মিত্রশক্তি নিয়ে সিদ্ধান্তমূলক পদক্ষেপ নেবে। তাতে দ্রুত এবং ভয়াবহ মূল্য চোকাতে হবে দেশটিকে। বাইডেন আরও বলেন, ইউক্রেনে আর একবার আক্রমণের ফলে বহু মানুষের প্রাণ যাবে এবং তাতে রাশিয়ার ভাবমূর্তি খারাপ হবে। 
এদিকে পুতিনের অভিযোগ, রাশিয়ার দাবিতে সন্তোষজনক সাড়া দেয়নি আমেরিকা এবং ন্যাটো। রাশিয়ার দাবি ছিল, ইউক্রনকে ন্যাটোর অন্তর্গত হওয়া থেকে আটকাতে হবে এবং ন্যাটোকে পূর্ব-ইউরোপ থেকে সেনা সরাতে হবে। 
 

আকর্ষণীয় খবর