সমীর দে,ঢাকা: শ্রদ্ধা, আবেগ আর ফুলেল ভালবাসায় ভাষা শহিদদের স্মরণ করতে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করা হয়েছে শহিদ মিনার। রাত ১২টায় রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা–নিবেদনের পর এখানে ফুল দিতে পারবেন সর্বস্তরের মানুষ।
বৃহস্পতিবার বিকেলে সর্বশেষ প্রস্তুতি দেখতে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বেদির রং আর আলপনার কাজ শেষ। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজও শেষ। পুলিশের কড়া পাহারায় আবদ্ধ শহিদ মিনারের চারপাশ। প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা–নিবেদনের আগে পর্যন্ত কেউ ঢুকতে পারবেন না বেদিতে। শহিদ মিনার থেকে দোয়েল চত্বরে যাওয়ার সড়কটি ব্যারিকেড দিয়ে আটকে রেখে সড়ক ধুয়ে মুছে আলপনায় সাজাচ্ছেন চারুকলার শিক্ষার্থীরা।
বিকেল থেকেই দোয়েল চত্বর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি–সহ শহিদ মিনারে প্রবেশের রাস্তাগুলোতে ব্যারিকেড বসিয়ে পাহারা দিতে দেখা গেছে পুলিশ সদস্যদের। সন্ধের পর থেকে বন্ধ করে দেওয়া হবে সড়কগুলো।
শুক্রবার দেশজুড়ে পালন করা হবে শহিদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দিনটি পালন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার–সহ রাজধানীজুড়ে নেওয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকবে শহিদ মিনার–সহ এর চারপাশের এলাকা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস যথাযথ ও সুশৃঙ্খলভাবে উদ্‌যাপনে ট্রাফিক নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। বৃহস্পতিবার সন্ধে ৬টা থেকে শুক্রবার দুপুর ২টা পর্যন্ত সব ধরনের যানবাহন চালককে এ নির্দেশনা মানতে হবে। থাকবে অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা।‌

ঢাকায় ভাষা শহিদ স্মারক। ছবি: প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top