আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হতেই দোকান খালি করে জীবাণুনাশক, মাস্ক, টিস্যু আর গুচ্ছের ওষুধপত্র কিনে ঘরে মজুত রেখে যঁারা ভেবেছিলেন খুব নিরাপদ হলেন, তঁাদের গালে সপাটে চড় কষাল কোভিড–‌১৯। ব্রিটেনের যুবরাজ, ব্রিটিশ সিংহাসনের পরবর্তী দাবিদার, ‘‌প্রিন্স অফ ওয়েলস’‌ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। রাজপ্রাসাদ সূত্রে জানানো হয়েছে, ৭১ বছরের যুবরাজের টেস্ট রিপোর্ট ‘‌পজিটিভ’‌ এসেছে, শরীরে করোনার সামান্য উপসর্গও দেখা দিয়েছে। এছাড়া তিনি ভালই আছেন। প্রিন্স চার্লসের ‌‌‌স্ত্রী, ‘‌ডাচেস অফ কর্নওয়াল’‌ ক্যামিলা পার্কারেরও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছিল একই সঙ্গে। তঁার রিপোর্ট নেগেটিভ। তবে দুজনেই আপাতত স্কটল্যান্ডের বালমোরাল প্রাসাদে স্বেচ্ছা–অন্তরিন হয়েছেন। রাজপরিবারের এখন দুশ্চিন্তা রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথকে নিয়ে। লন্ডনে করোনার প্রকোপ শুরু হতেই রানিকে বাকিংহাম প্রাসাদ থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু ছেলে চার্লসের সঙ্গে রানির সাক্ষাৎ হয়েছিল ১২ মার্চ। ফলে ৯৩ বছরের রানিমাকে নিয়ে উদ্বেগ থেকেই যাচ্ছে রাজবৈদ্যদের। প্রিন্স চার্লস কোথা থেকে করোনাভাইরাসে সংক্রামিত হয়েছেন, পার্ষদরা সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত নয়। তবে প্রতিদিন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যে পরিমাণ বাইরের লোকজনের সংস্পর্শে তঁাকে আসতে হয়, সংক্রমণ আশ্চর্য নয়। যদিও সেই সময়ের একটি ভিডিও এর মধ্যে জনপ্রিয় হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে প্রিন্স চার্লস একটি অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে গিয়ে অন্য অভ্যাগতদের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার সময় অভ্যাসবশত করমর্দনের জন্য হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। পরমুহূর্তেই ভুলটা বুঝতে পেরে সচকিত হয়ে ফিরিয়ে নিচ্ছেন বাড়িয়ে দেওয়া হাত। বদলে তিনি ভারতীয় কায়দায় হাত তুলে সবাইকে নমস্কার করছেন। সেই সময় ভিডিওটি এই কারণেই আরও জনপ্রিয় হয়েছিল, যে সদাসুরক্ষিত রাজপরিবারের সদস্য হয়েও প্রিন্স চার্লস করোনা সংক্রমণ রুখতে কতটা সাবধানি!‌ সেই তিনিই সংক্রামিত হওয়ায় ব্রিটেনে উদ্বেগ আরও গভীর হল। এদিনই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ব্রিটিশ সঙ্গীতশিল্পী, ৭৬ বছরের সি টাকার। লিভারপুলের মানুষ টাকার একসময় নবীন পপ গানের দল বিটল্‌স–এর সঙ্গেও অনুষ্ঠান করেছেন। শনিবার একটি অনুষ্ঠানের শেষে তঁার শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়। সেই অসুস্থতা থেকেই মঙ্গলবার মারা গেলেন তিনি। হৃদরোগ এবং ডায়াবিটিস ছিল টাকার–এর।‌

জনপ্রিয়

Back To Top