Durga Puja 2022: ৩৬ বছরে পা প্যারিসের সম্মিলনীর পুজোর, এবারেও জাঁকজমক নজরকাড়া

অনম্বর আদিত্য চৌধুরী, প্যারিস: মহালয়ার পর প্রতিপদ থেকে পুজো শুরুর চল নেই এখানে।

তাই ষষ্ঠীর বোধন থেকেই শুরু হয় দেবীর আরাধনা। পুজোর চারদিন সব দায়িত্ব সামলাতেই নাভিশ্বাস উঠে যায়। প্যারিসের সম্মিলনীর পুজো এই বছর ৩৬ বছরে পা রাখল। কয়েক বছর আগে পর্যন্ত পুজো দেখতে গোটা ইউরোপের নানা জায়গা থেকে প্যারিসেই আসতেন সকলে। এখনও ফ্রান্সের অন্যান্য শহর থেকে বাঙালি, অবাঙালিরা সম্মিলনীর পুজোতে সামিল হন। এ বছর অরিত্র এসেছে, মারসেইলি থেকে অফিসে ছুটি নিয়ে। চান্দ্রেয়ী, তাঁর ফ্রেঞ্চ স্বামীকে বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচয় করাতে বেছে নিয়েছে দুর্গাপুজোকেই। স্বনামধন্য বাচিকশিল্পী পার্থপ্রতিম মজুমদারের মেয়ে দোয়েল মজুমদার তিনিও তাঁর ফরাসি স্বামীকে পুজো দেখাতে এখানে পা রেখেছেন। দোয়েল প্যারিসেই জন্মেছেন এবং এখানেই তাঁর বেড়ে ওঠা। তবুও পরিষ্কার বাংলা উচ্চারণ তাঁর। শাড়ি পরে অঞ্জলি দেন। ভোগ প্রসাদের জন্য বাংলায় কথা বলেন, তখন অবাক হতেই হয়। 

তবে সবচেয়ে মজার, এবারের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। গতবছর পর্যন্ত যাদের বাংলায় কথা বলতে শুনিনি, তারাই এবার লীলা মজুমদারের নাটক উপস্থাপন করবে। ফলে সবচেয়ে নজর কাড়বে শিশুদের এই পারফরম্যান্স। এত ব্যস্ততার মাঝেই এভাবে যে আমাদের ঐতিয্য পরের প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে পারছি, এটাই আমাদের সবচেয়ে বড় পাওনা। 

নিজেদের পুজো ছাড়াও, প্যারিসেও প্যান্ডেল হপিং চলে। এবছর সব পুজো শহরতলিতে স্থানান্তরিত হয়েছে। গতবছর পর্যন্ত এই পুজোগুলোও ঘুরে দেখেছি আমরা। সবচেয়ে মজার বিষয় হল, বোধনের পর যখন প্যারিসের রাস্তায় বেরিয়েছি, তখন দেখি কাতারে কাতারে লোক। প্রতি বছর পয়লা অক্টোবর এখানে বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। সারারাত ধরে প্যারিসের রাস্তায় আর্ট এক্সিবিশন, ছোট ছোট নাটক উপস্থাপন, এগুলো চলতেই থাকে। 

আকর্ষণীয় খবর