আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ লিথিয়াম–আয়ন ব্যাটারিকে প্রযুক্তিগতভাবে আরও উন্নত করায় এবছর রসায়নে নোবেল পাচ্ছেন তিনজন বিজ্ঞানী। বুধবার তিন বিজ্ঞানীর নাম ঘোষণা করেছে নোবেল পুরস্কারদাতা কমিটি দ্য র‌্যয়াল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্স। এই বিজ্ঞানীরা হলেন, জন বি গুডেনফ, এম স্ট্যানলি হুইটিংহ্যাম এবং আকিরা ইওশিনো। নোবেল কমিটির তরফে বিবৃতি দিয়ে এঁদের নাম ঘোষণা করে বলা হয়েছে, ওজনে হালকা, রিচার্জেবল্‌ এবং শক্তিশালী এই লিথিয়াম–আয়ন ব্যাটারিগুলি বর্তমান সমাজে সেলফোন থেকে শুরু করে বৈদ্যুতিন গাড়ি, সর্বত্র ব্যবহার হয়ে থাকে। এই রসায়নবিদরা তাঁদের কর্মদক্ষতায় বেতার, জীবাশ্ম–জ্বালানিহীন সমাজ গড়তে সাহায্য করেছেন।
১৯৭০–র দশকের শুরুতে বিজ্ঞানী হুইটিংহ্যাম লিথিয়ামের বাইরের ইলেক্ট্রন ব্যবহার করে সর্বপ্রথম কার্যকরী লিথিয়াম ব্যাটারি তৈরি করেছিলেন। বিজ্ঞানী গুডেনফ সেই ব্যাটারির কর্মদক্ষতা দ্বিগুণ করে সেগুলিকে বহুজনের ব্যবহারযোগ্য করে তুলেছিলেন। বিজ্ঞানী ইওশিনো ব্যাটারি থেকে লিথিয়াম–আয়নের পরিবর্তে আসল লিথিয়ামকে আলাদা করেছিলেন। যার ফলে এই ব্যাটারি কাজ করতে শুরু করেছিল। তিনজনের মিলিত দক্ষতার ফলে আজকের দিনের এই হাল্কা ওজনের শক্তিশালী ব্যাটারি তৈরি হয়েছে যেটা সম্পূর্ণ নষ্ট হওয়ার আগে ১০০ বার রিচার্জ করা যায়। ইলেক্ট্রোডের ভাঙাগড়া নয়, লিথিয়াম–আয়ন ব্যাটারি অ্যানোড এবং ক্যাথোডের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত লিথিয়াম–আয়নের চলাচলের উপর ভিত্তি করেই তৈরি হয়েছে। ১৯৯১ সালে প্রথম বিশ্ববাসীর জীবনে প্রবেশ করেছিল লিথিয়াম–আয়ন ব্যাটারি। পরেরটা ইতিহাস।
ছবি:‌ এএনআই      

জনপ্রিয়

Back To Top