‌সংবাদ সংস্থা,ওয়াশিংটন: নরেন্দ্র মোদির মতো লোক ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে চুপ করে গিয়েছিলেন। এমনই ভয়ঙ্কর ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভূগোল জ্ঞান। আগের রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ–ও ভুলভাল ভূগোলের কারণে কুখ্যাত হয়েছিলেন। কিন্তু অন্য দেশের সরকার–প্রধানের সঙ্গে আলোচনায় এমন নির্বিকারভাবে ভুল বলার নজির বিশেষ নেই। আর ট্রাম্পের কথা শুনে নরেন্দ্র মোদির অভিব্যক্তির বদলও দেখার মতো হয়েছিল। প্রথমে বিস্ময়, তার পর অবিশ্বাস, শেষে ঘোর হতাশা এবং হাল ছেড়ে দেওয়া। ‘‌সেই বৈঠকের পর দেশে ফিরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নিশ্চিত ভেবেছিলেন, যতদিন এই ডোনাল্ড ট্রাম্প লোকটা প্রেসিডেন্ট থাকবে, আমেরিকার সঙ্গে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখবে ভারত!‌’‌ মন্তব্য করেছেন ওয়াশিংটন পোস্ট কাগজের দুই সাংবাদিক ফিলিপ রুকার এবং ক্যারল ডি লেওনিং। ওঁদের নতুন বই ‘‌এ ভেরি স্টেব্‌ল জিনিয়াস’‌–এ। ৪১৭ পাতার এই বইতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের প্রথম তিন বছরের নানা উল্লেখযোগ্য ঘটনার খতিয়ান রয়েছে। ট্রাম্প–মোদির বৈঠক তার মধ্যেই একটি। ঠিক কবে এই বৈঠক হয়েছিল, নির্দিষ্ট করে তার সাল–তারিখ জানাতে পারেননি ওঁরা। সম্ভবত চীনের সঙ্গে ভারতের নিত্য খিটিমিটি নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প–কে কিছু বলছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। তাতে ট্রাম্প সান্ত্বনা দেওয়ার ঢঙে মোদিকে বলেন, আরে ‘‌চীন তো অন্তত আপনার দেশের সীমান্তে দঁাড়িয়ে নেই!‌’‌ অর্থাৎ, চীন তো ভারতের থেকে দূরে!‌ অত চিন্তার কী আছে!‌
রুকার এবং লেওনিং লিখেছেন, কথাটা শুনে বিস্ময়ে প্রধানমন্ত্রী মোদির চোখ যেন ঠেলে বেরিয়ে আসছিল। তার পর মুখের ভাব বদলাতে শুরু করল। বিস্ময় থেকে অবিশ্বাস, তার পর উদ্বেগ এবং সবশেষে হাল ছেড়ে দেওয়া হতাশা। ভারত এবং চীনের মধ্যে যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা, তার ৩৪৮৮ কিমি সীমান্ত বরাবর বিরোধ রয়েছে দুই দেশের মধ্যে। সেটা যে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জানেন না, বিশ্ব মানচিত্র নিয়ে যে তাঁর কোনও ধারণাই নেই, এটাতে অবাক হয়েছিলেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। মন্তব্য রুকার–লেওনিংয়ের। যদিও তাতে শেষ পর্যন্ত ট্রাম্প–মোদি বন্ধুত্ব আটকায়নি মোটেই। বরং দুজনের মধ্যে এখন ব্যক্তিগত স্তরের বোঝাপড়া আছে। ২০১৯ সালেই চার চারবার দেখা হয়েছে দুই নেতার। তার মধ্যে হিউস্টনে বহুল বিজ্ঞাপিত ‘‌হাওডি মোদি’‌ অনুষ্ঠানে জোড়ায় হাজির ছিলেন দুজনে। ফোনে অন্তত দু’‌বার কথা হয়েছে। গত সেপ্টেম্বরে আমেরিকা সফরে গিয়ে মোদি সপরিবার ভারতে আসার আমন্ত্রণ জানিয়ে আসেন ট্রাম্প–কে। ‌

ট্রাম্প ও মোদি। ফাইল ছবি

জনপ্রিয়

Back To Top