৮ বছর ধরে ভারতীয়কে ক্রীতদাসী হিসেবে আটক, মেলবোর্নের দম্পতির ৮ বছরের জেল

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভারতীয় মহিলাকে কাজের জন্য এনেছিল দম্পতি। কিন্তু আট বছর তাঁকে আটকে রেখেছিল বাড়িতে। একবারের জন্যও তাঁকে নিজের বাড়িতে যেতে দেয়নি। সঙ্গে চলেছে অকথ্য অত্যাচার। রাত–দিন খাটুনি। এসবের চাপে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন সেই মহিলা। সেই মহিলাকে ক্রীতদাসী করে রাখার অপরাধে আট বছরের জেল হল অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের এক দম্পতির। তারাও প্রবাসী ভারতীয়।
অভিযুক্তর নাম কুমুদিনী কান্নান (‌৫৩)‌ এবং তাঁর স্বামী কাণ্ডাস্বামী কান্নান (‌৫৭)‌। স্বামীর থেকে তার স্ত্রীর অপরাধই বেশি। মূলত সেই ওই মহিলাকে জোর করে আটকে রেখে অত্যাচার চালিয়েছে। আদালত জানিয়েছে, কাণ্ডাস্বামীর স্ত্রীর বিরুদ্ধে কথা বলার কোনও ক্ষমতাই ছিল না। বিচারপতি জন চ্যাম্পিয়ন জানিয়েছেন, দু’‌জনেরই নিজেদের কৃতকর্মের জন্য কোনও অনুশোচনা নেই। 
প্রথমে ২০০২ সালে ওই মহিলাকে তামিলনাড়ু থেকে কাজ করতে নিয়ে আসে কান্নান দম্পতি। ২০০৪ সালে তিনি বাড়ি ফিরে যান। এর পর ২০০৭ সালে ফের তাঁকে ট্যুরিস্ট ভিসায় মেলবোর্নে নিয়ে আসেন দম্পতি। ২০১৫ সাল পর্যন্ত আটকে রাখেন। ওই ক’‌ বছর রোজ ২৩ ঘণ্টা কাজ করতেন মহিলা। দম্পতির ৩ বিশেষভাবে সক্ষম শিশুকে দেখভাল, রান্না, ঘর পরিষ্কার, সবই করতেন তিনি। তাঁকে ঠিকমতো খেতে দিত না কান্নান দম্পতি। চিকিৎসা করাত না। বরফ–জমা চিকেন দিয়ে তাঁকে মেরেওছিলেন কুমুদিনী। 
নিগৃহীতা অল্পবয়সে স্বামীকে হারান। ৪ সন্তান এবং পরিবারের পেট চালানোর জন্যই বিদেশে কাজ নিয়ে গেছিলেন। তাঁর ওপর চলেছিল অকথ্য অত্যাচার। ২০১৫ সালে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাঁর পরিচয় গোপন করে হাসপাতালে ভর্তি করান কুমুদিনী। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, অপুষ্টিতে ভুগছেন মহিলা। অক্টোবরে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান।