আজকাল ওয়েবডেস্ক: জৈশ প্রধান মাসুদ আজহারকে নিয়ে রাষ্ট্রপুঞ্জের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই তাকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি তকমা দেওয়ার ওপর জোর দিল আমেরিকা। মার্কিন প্রশাসন জানিয়েছে, বিভিন্ন দেশে স্থিতিশীলতা ও শান্তি বজায় রাখার জন্য মাসুদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতেই হবে। বুধবারই রাষ্ট্রপুঞ্জ মাসুদ আজহারকে নিয়ে তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানাবে বলে জানা গিয়েছে। আমেরিকা, ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের আবেদনের ভিত্তিতেই মাসুদকে নিয়ে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করেছে  রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পর্ষদ।  
জৈশ–ই–মহম্মদ বা জৈশ প্রধান মাসুদ আজহার ভারতে বহু সন্ত্রাসী হামলার পেছনে ষড়যন্ত্রকারী হিসাবে রয়েছে। সংসদ হামলা হোক বা পাঠানকোট বায়ু সেনার ঘাঁটিতে হামলা অথবা উরির সেনা শিবিরে হামলা, সব হামলার নেপথ্যেই হাত রয়েছে মাসুদ আজহারের। সম্প্রতি পুলওয়ামাতে সিআরপিএফ কনভয়ের ওপর হওয়া আত্মঘাতী জঙ্গি হামলার পেছনেও হাত রয়েছে জৈশের। রাষ্ট্রপুঞ্জের তিন স্থায়ী সদস্য আমেরিকা, ব্রিটেন এবং ফ্রান্স আবেদন করেছিল যে মাসুদকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি তকমা দেওয়া হোক। একই দাবি করেছে ভারতও। যদিও এই প্রস্তাবনার তীব্র বিরোধিতা করে এসেছে চীন। নিরাপত্তা পরিষদের ভেটো দিতে সক্ষম পাঁচটি রাষ্ট্রের একটি চিন। বার বার সেভাবেই তারা মাসুদকে রক্ষা করে চলেছে। যার ফলে বেঁচে যাচ্ছে জৈশ প্রধান। চীনের দাবি, মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি তকমা দেওয়ার জন্য যথেষ্ট প্রমাণের অভাব রয়েছে। মাসুদের ব্যাপারে রাষ্ট্রপুঞ্জ সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে ট্রাম্প প্রশাসন মঙ্গলবার নিজেদের মনোভাব স্পষ্ট করেছে।  মার্কিন স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র রবার্ট পালান্ডিও বলেন, ‘‌মাসুদ আজাহার জৈশ–ই–মহম্মদের প্রধান। আর তাকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি তকমা দেওয়া উচিত। সেটা না  দিলে দক্ষিণ–পূর্ব এশিয়ায় জন্য সমস্যা দেখা দিতে পারে।’‌ আদতে শেষ তিন বছর ধরে চীনের আপত্তিতেই পুলওয়ামা–সহ ভারতে হয়ে  যাওয়া একাধিক জঙ্গি হানার মাস্টার মাইন্ড মৌলানা মাসুদ আজাহারকে রাষ্ট্রপুঞ্জ ঘোষিত জঙ্গির তকমা দেওয়া যাচ্ছে না। তবে পুলওয়ামার হামলার পর নিহত জওয়ানদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছিল চিন। কিন্ত তার বেশি কিছু করেনি বেজিং।    ‌

 

 


 

জনপ্রিয়

Back To Top