আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ তাঁর দেশের আর্থিক লোকসান হলেও যেটা সত্যি সেটা বলতে তিনি পিছপা হবেন না। মঙ্গলবার একথা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মহাথীর মহামদ। বরাবরই ঠোঁটকাটা বলে পরিচিত ৯৪ বছরের মহাথীর সম্প্রতি ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়ার আইন সিএএ নিয়ে মোদি সরকারের সমালোচনা করেছিলেন। তারপরই গত সপ্তাহে মালয়েশিয়া থেকে পরিশোধিত পাম অয়েল আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে দিল্লি। গত বৃহস্পতিবার বিদেশ মন্ত্রক অবশ্য বলেছে, কোনও নির্দিষ্ট দেশের আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হয়নি। বাণিজ্যিক কারণে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে মাথায় রেখেই এই বিধিনিষেধ।
প্রসঙ্গত, সারা বিশ্বে সর্বাধিক পাম অয়েল উৎপাদন এবং রপ্তানিতে ইন্দোনেশিয়ার পরই দ্বিতীয় স্থানে মালয়েশিয়া। ভারতে বিশ্বের সর্বাধিক পাম অয়েল আমদানি হয়। কিন্তু মহাথীরের ওই মন্তব্যের পরই মালয়েশিয়ার পরিশোধিত পাম অয়েল আমদানি নিষিদ্ধ করেছে ভারত। মার্চে পাম অয়েলের বরাত ০.‌৯ শতাংশ নেমে গিয়েছে। মালয়েশিয়ার বদলে এখন সেই দামের থেকে প্রতি টনে ১০ মার্কিন ডলার বেশি দিয়ে অপরিশোধিত পাম অয়েল ইন্দোনেশিয়া থেকে কিনছে ভারত।

রপ্তানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্বভাবতই বড় ধাক্কা লেগেছে মালয়েশিয়ার অর্থনীতিতে। কিন্তু এব্যাপারে নিজের মন্তব্যে অটল মহাথীর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘‌ভারতে পাম অয়েল বিক্রি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা নিশ্চয়ই উদ্বিগ্ন। কিন্তু ভুল কিছু হলে সেটা খোলাখুলি আমাদের বলতেই হবে। যদি আপনি ভুলটা হয়ে যেতে দেন আর নিজের অর্থচিন্তাই শুধু করেন তাহলে আমি মনে করি ওই ভুলটা আমরা এবং সবাই করবে।’‌ যদিও বৃহত্তম আমদানিকারের বিকল্প পাওয়া সহজ হবে না তবুও আর্থিক ক্ষতি সামলাতে তাঁরা এখন পাকিস্তান, ফিলিপিন্স, মায়ানমার, ভিয়েৎনাম, ইথিওপিয়া, সৌদি আরব, মিশর, জর্ডান এবং আলজেরিয়ায় আরও বেশি করে পাম অয়েল রপ্তানি করছেন বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী। এব্যাপারে কূটনৈতিক স্তরে আলোচনাও চলছে বলে জানান তিনি।
দিন কয়েক আগে সৌদি আরবের সঙ্গেও নিজের এই ঠোঁটকাটা স্বভাবের জন্যই কূটনৈতিক সম্পর্ক নষ্ট করেছেন মহাথীর। ভারতের সঙ্গে এর আগেও তাঁর সমস্যা হয়েছিল, যখন তিনি বলেছিলেন যে দিল্লি জবরদস্তি কাশ্মীর দখল করে রেখেছে। যদিও পরে সেই সমস্যা মিটে যায়।

জনপ্রিয়

Back To Top