সংবাদ সংস্থা, ওয়াশিংটন, ৩০ মার্চ- অবশেষে সত্যিটা মেনে নিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। চলতি লকডাউনের মেয়াদ ৩০ এপ্রিল, মানে আরও এক মাস বাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তেই পরিষ্কার, পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার আশঙ্কা করছে মার্কিন প্রশাসন। ‘‌খুব শিগগিরই কাজে ফেরা’‌, অথবা ইস্টারের ছুটি নাগাদ (‌এপ্রিলের মাঝামাঝি)‌ সামাজিক দূরত্বের কড়াকড়ি শিথিল করার যে স্তোকবাক্য প্রেসিডেন্ট আগের দিন পর্যন্ত দিয়ে গেছেন, তা বাস্তবের ধারে‌কাছে নেই। রবিবারের হিসেব, আমেরিকায় এখনও পর্যন্ত ২,৫০৬ জন আক্রান্ত মারা গিয়েছেন। তার মধ্যে ৭৭৬ জন শুধুমাত্র নিউ ইয়র্ক প্রদেশেরই, যেখানে সরকারিভাবে ঘোষিত করোনা রোগীর সংখ্যা ৫৯ হাজারের বেশি। আর সারা আমেরিকায় করোনা–আক্রান্ত প্রায় দেড় লক্ষ। রবিবার হোয়াইট হাউসের দৈনন্দিন সাংবাদিক সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্টের অন্যতম চিকিৎসা উপদেষ্টা ডাঃ অ্যান্টনি ফৌচি নিজেই বললেন, শেষ পর্যন্ত ২ লাখের বেশি নাগরিক করোনায় প্রাণ হারাতে পারেন। সংক্রামিত হতে পারেন অন্তত ১০ লাখ। তারপরই অবশ্য তিনি সাহস দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। বলেছেন, সংক্রমণ যে হারে ছড়াচ্ছে, তার নিরিখে এটা একটা ধারণা মাত্র। এবং সেরকম পরিস্থিতি রুখে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এদিন মেনে নেন, আর সপ্তাহ দুয়েকের মাথায় করোনার সংক্রমণ এবং সেই কারণে মৃত্যু তুঙ্গে পৌঁছবে। যে কারণে সামাজিক দূরত্বের বিধিনিষেধ ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত। আগামী মঙ্গলবার আবারও যাবতীয় তথ্য–‌পরিসংখ্যান নিয়ে বৈঠকে বসবেন ট্রাম্পের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের কর্তারা। তারপর আরও পরিষ্কার একটা ছবি পাওয়া যাবে, বলেছেন ট্রাম্প।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট রবিবার জানান, ম্যালেরিয়ার প্রতিষেধক হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন এবং রক্তশোধনের একটি পদ্ধতি মিলিয়ে করোনা–আক্রান্তদের চিকিৎসার চেষ্টা হচ্ছে। নিউ ইয়র্কে ১১০০ জনের শরীরে হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন এবং অ্যাজিথ্রোমাইসিন গোত্রের ওষুধ জেড প্যাক প্রয়োগ করা হয়েছে। পাশাপাশি কনভালসেন্ট প্লাজমা নামে একটি রক্তশোধন প্রক্রিয়া চলছে, যে পরীক্ষামূলক চিকিৎসা একমাত্র মরণাপন্ন রোগীর ক্ষেত্রে করা হয়। এক্ষেত্রে, সুস্থ হয়ে ‌ওঠা করোনা রোগীর রক্ত থেকে প্লাজমা সংগ্রহ করে অসুস্থ ব্যক্তির শরীরে দেওয়া হচ্ছে। শুক্রবার থেকে এই নতুন পদ্ধতিতে চিকিৎসা চলছে, তবে এখনও নিশ্চিত করে কিছু বলার মতো জায়গায় পৌঁছনো যায়নি। তবে প্রাথমিক ফলাফল আশাজনক, বলেছেন প্রেসিডেন্ট। এবং স্পষ্টই বুঝিয়েছেন, মার্কিন আমআদমির মতো তিনিও কোনও একটা ম্যাজিকের প্রতীক্ষা করছেন।‌

জনপ্রিয়

Back To Top