আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌সহজেই প্রথম ধাক্কা সামলেছিল জাপান। তবে বড় ক্ষতি হয়েছিল অর্থনীতির। মন্দা কাটাতে তড়িঘড়ি লকডাউন তুলে সব খুলে দিয়েছিল সরকার। তাতেই বড় বিপত্তি ঘটে গেছে সেদেশে!‌ করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় পরিস্থিতি ধীরে ধীরে হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে জাপানে। এক সময় জাপানের করোনা ঠেকানোর মডেল নিয়ে গোটা বিশ্বে অনেক চর্চা হয়েছে। এখন বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের কারণেই ফের সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে জাপানে। সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‌সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের কারণে করোনা রুখে দিতে পেরেছে জাপান। তারপরও ফের ছড়িয়ে পড়ল মারণ রোগ। রাজধানী টোকিও থেকে পার্শ্ববর্তী অন্যান্য শহরগুলোতেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। আগে যে অঞ্চলগুলো থেকে কোনও কেস ধরা পড়েনি, এখন সেগুলি করোনা হটস্পট। দ্বিতীয় ধাক্কায় বৃদ্ধরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন জাপানে। বিষয়টি আরও বেশি উদ্বেগের, কারণ গোটা বিশ্বে বৃদ্ধদের সংখ্যা জাপানেই সবচেয়ে বেশি। বিশেষজ্ঞদের দাবি, অর্থনীতির হাল ফেরাতে বড্ড তাড়াহুড়ো করেছে জাপান। প্রথম ধাক্কা সামলানোর পড়ই দোকানপাট, বাজার–হাট, মল সব খুলে দেওয়া হয়েছিল। ‘‌করোনা পরিস্থিতির তুলনায় অর্থনীতিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ার ফল এটা’‌, বলেন জাপানের শোওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ইয়োশিহিতো নিকি। 
শুধু জাপানই নয়, এশিয়া–প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আরও বেশ কয়েকটি দেশে দ্বিতীয় ধাক্কা দিয়েছে করোনা। চীন, অস্ট্রেলিয়া, ভিয়েতনাম, হংকং–এ সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। কিংস কলেজ, লন্ডনের অধ্যাপক কেনজি শিবুয়া বলেন, ‘‌আরও কড়া পদক্ষেপ করে সংক্রমণ ঠেকাতে পারত জাপান। অস্ট্রেলিয়া এবং হংকং যা করেছে। আঞ্চলিক লকডাউন ঘোষণা করে আরও বেশি পরিমাণে করোনা পরীক্ষায় জোর দিয়েছে তারা। চুপচাপ বসে থেকেই বড় ক্ষতি করে ফেলেছে জাপান!‌’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top