আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ রাষ্ট্রপুঞ্জে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের পদ থেকে ইস্তফা দেবেন বলে ঘোষণা করেছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত কূটনীতিক নিকি হ্যালি। ট্রাম্পের প্রশাসনেও আর থাকবেন না তিনি। নিকির এই হঠাৎ ঘোষণার পর থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছে। তাহলে এ বার কে? ট্রাম্প নিজেই অবশ্য বলেন, ‘‌ইভাঙ্কা যদি যায় আমি নিশ্চিত সেটা একটা মারকাটারি ব্যাপার হবে।’‌ শুধু এখানেই শেষ নয়, তিনি আরও বলেন, ‘‌ওই পদে ইভাঙ্কাই যোগ্যতম। তবে তার মানে এটা নয় যে ওকেই বেছে নিচ্ছি। তা হলে তো আবার স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠবে।’‌ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, নিকির সঙ্গে আলোচনা করেই তিন সপ্তাহের মধ্যেই নাম ঘোষণা করা হবে। 
ইভাঙ্কা অবশ্য জানান, তিনি ওই দায়িত্ব পালনে আগ্রহী নন। বাবা মুখ খোলার পরপরই মেয়ে টুইটারে লেখেন, ‘‌হোয়াইট হাউসে কাজ করাটা অত্যন্ত গর্বের। আশা করব নিকির পরে যোগ্য কেউই যাবেন রাষ্ট্রপুঞ্জে। আমি আগ্রহী নই।’‌ কিন্তু নিকি এত তাড়াতাড়ি কেন হোয়াইট হাউস ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন তা নিয়ে প্রশ্নও তুলছেন অনেকে। কেউ কেউ বলছেন, ট্রাম্পকে খুশি রেখে তাঁর গণ্ডি ছেড়ে বেরিয়ে আসার এটাই সবচেয়ে ভাল সময়। নিকির ঘনিষ্ঠ মহলের একাংশ আবার জানাচ্ছে, টানা দু’বছরের পরিশ্রম থেকে নিকি সত্যিই মুক্তি চাইছিলেন।

জনপ্রিয়

Back To Top