আজকাল ওয়েবডেস্ক: চাপ বাড়ছে পাকিস্তানের ওপর। সে কথা আগেই জানিয়েছিলেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। এবার‌ শেষবারের মতো জঙ্গিদের অর্থসাহায্য বন্ধ করতে বলা হল পাকিস্তানকে। এটাই ওই দেশকে কালো তালিকাভুক্ত করার আগে শেষ সতর্কবার্তা। ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের (এফএটিএফ) প্লেনারি সেশনে ইতিমধ্যে যা ইঙ্গিত মিলেছে তাতে বোঝা যায়, সদস্য দেশগুলি মনে করছে জঙ্গিদের অর্থসাহায্য বন্ধ করতে যথেষ্ট ব্যবস্থা নেয়নি পাকিস্তান। ফলে তাকে পাঠানো হতে পারে ডার্ক গ্রে অর্থাৎ গাঢ় ধুসর তালিকায়। কারণ ২৭টি পদক্ষেপের মধ্যে মাত্র ৬টি করেছে তাঁরা। আগামী ১৮ অক্টোবর পাকিস্তানের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে খবর।
উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের জুন মাসে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকাভুক্ত করা হয়। এর পরের পর্যায়টি হল তাদের কালো তালিকাভুক্ত করা। কিন্তু ধূসর ও কালোর মধ্যে একটি অন্তর্বর্তী পর্যায় আছে। তা হল গাঢ় ধুসর তালিকা। কোনও দেশকে ওই তালিকায় ফেলা মানে তাকে শেষবারের মতো সতর্ক করা হচ্ছে। প্যারিসের এই নজরদারি সংস্থাটি পাকিস্তানকে ধূসর তালিকায় রাখে এবং ২০১৯ সালের অক্টোবরের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ রুখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার জন্যে ওই দেশকে সময় দেয়। এই সতর্কবার্তাও দেওয়া হয় যে পাকিস্তান প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না করতে পারলে তারাও ইরান এবং উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কালো তালিকাভুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে।
পরিস্থিতি যদি সেদিকে গড়ায় তাহলে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে আর্থিক সহায়তা পাওয়া খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। ফলে পাকিস্তানের বর্তমান আর্থিক অবস্থা আরও অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। এখন অত্যন্ত খারাপ আর্থিক অবস্থায় রয়েছে ইমরান খানের দেশ। 

জনপ্রিয়

Back To Top