সংবাদ সংস্থা, জেনেভা: ‌বিশ্বের বেশ কিছু দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার জন্য দায়ী যুবসমাজ। রাখঢাক না করে এমনই জানিয়ে দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (‌হু)‌। তাদের বক্তব্য বেশ স্পষ্ট, যুবসমাজের বেপরোয়া আচরণেই সংক্রমণ অনেক বেশি করে ছড়াচ্ছে। বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সম্মেলনে হু প্রধান টেড্রস অ্যাডানম গেব্রেয়িসাস বলেন, ‘‌অসতর্ক আচরণ করছে যুবসমাজ। তার ফলই ভুগতে হচ্ছে সমাজের বাকি অংশের মানুষকে।’‌ আক্ষেপ করে তিনি বলেন, ‘‌বয়স্কদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। কিন্তু যুবসমাজও অপরাজেয় নয়। তাদেরও ঝুঁকি রয়েছে। এই ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকির ব্যাপারে তাদের ঠিকমতো বোঝানো যায়নি। অনেক গাফিলতি রয়ে গিয়েছে। উত্তর গোলার্ধে গ্রীষ্মকালে বেশ কিছু দেশের যুবক–‌যুবতীরা বেপরোয়া আচরণ করেছে। সেই কারণেই কিছু কিছু দেশে কোভিডের বেশি মাত্রায় ছড়িয়ে পড়ার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে।’‌
বৃহস্পতিবার গেব্রেয়িসাস বলেন, শুক্রবার পর্যন্ত ১ কোটি ৬৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। সাড়ে ৬ লক্ষেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। বিশ্বের মোট সংক্রমিতের অর্ধেকই মাত্র ৩টি দেশ থেকে। মৃতদের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি মাত্র ৪টি দেশ থেকে। দেখাই যাচ্ছে, আমরা একে বিশ্বব্যাপী অতিমারী বললেও সব দেশে একইরকম অনিয়ন্ত্রিতভাবে এই ভাইরাস ছড়ায়নি। সেই কারণেই এর মোকাবিলা করার ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। এখন আমাদের কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল, যুবসমাজকে এই সংক্রমণের ঝুঁকির ব্যাপারে বোঝানো। আমরা আগেও বলেছি, ভবিষ্যতেও বলব, সংক্রমণের ব্যাপারে যুবসমাজ ঝুঁকিমুক্ত নয়। তাদেরও অন্যদের মতোই নিজেদের বাঁচানোর জন্য সুরক্ষাবিধি মেনে চলতে হবে। ‌যুবসমাজ সংক্রমিত হতে পারে, তাদের মৃত্যু হতে পারে, তারা অন্যদের ভাইরাস ছড়িয়েও দিতে পারে। আবার এই অতিমারী থেকে মুক্তির পথে যুবসমাজই হয়ে উঠতে পারে নেতা। পরিবর্তনের চালক।’‌ কো‌ভিড সংক্রান্ত প্রযুক্তি বিভাগের আধিকারিক মারিয়া ভ্যান কেরকোভে বলেন, কিছু কিছু দেশে নাইট ক্লাবগুলি এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার হটস্পট হয়ে উঠেছে। অর্থাৎ তাঁর ইঙ্গিত যে বিশেষ করে আমেরিকার দিকে, তা স্পষ্ট।

জনপ্রিয়

Back To Top