সংবাদ সংস্থা, নিউ ইয়র্ক: রাজস্ব আদায়ের সম্ভাবনা যতই উজ্জ্বল থাকুক না কেন, ভারতকে তার আর্থিক ঘাটতি নিয়ন্ত্রণে রাখতেই হবে। বললেন আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল আইএমএফ–‌এর মুখ্য অর্থনীতিবিদ গীতা গোপীনাথ। ২০১৮ সালে ভারতের প্রকৃত অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার ৬.‌৮% হওয়া সত্ত্বেও, আইএমএফ তাদের সাম্প্রতিক বিশ্ব অর্থনীতি বীক্ষায় ২০১৯ সালে ভারতের বৃদ্ধির সম্ভাব্য হার ৬.‌১ শতাংশে সীমাবদ্ধ রেখেছে। যদিও ২০২০ সালে ভারতের বৃদ্ধি ৭.‌১% হতে পারে বলে তাদের আশা। বুধবার বিশ্ব অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আইএমএফ বার্ষিক বৈঠকে বসছে বিশ্বব্যাঙ্কের সঙ্গে। তার আগে বিশিষ্ট ভারতীয়–মার্কিনি অর্থনীতিবিদ গোপীনাথের এই মন্তব্য কিছুটা হুঁশিয়ারির মতোই শোনাল।
গীতা গোপীনাথ জানাচ্ছেন, বিশ্ব অর্থনীতির ক্ষেত্রে মন্দা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভারতের ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর দুর্বলতা এবং সার্বিকভাবে ঋণ নেওয়ার অনীহা একটা খারাপ প্রভাব ফেলেছে অর্থনৈতিক বৃদ্ধির ওপর। ব্যক্তিগত গ্রাহক থেকে শুরু করে ছোট ও মাঝারি শিল্প উদ্যোগ, সবাই ঋণ নেওয়া বন্ধ করেছে। তার একটা সম্মিলিত প্রভাব পড়ছে জাতীয় অর্থনীতিতে। এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন সম্প্রতি যেসব ব্যবস্থা নিয়েছেন, তার প্রশংসাই করেছেন গীতা গোপীনাথ। কিন্তু তঁার হুঁশিয়ারি, ভারতের সামনে এই মুহূর্তে যে সব অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ রয়েছে, সে সবের মোকাবিলা করতে হলে আরও অনেক কিছু করার আছে।
সবার আগে বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কগুলোর হিসেবের খাতা সাফসুতরো করতে হবে, বলছেন গোপীনাথ। তঁার সোজা কথা, আইএমএফ যে বলেছে ২০২০ সালে ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ৭ শতাংশ ছাড়াতে পারে, তা সম্পূর্ণই নির্ভর করছে ব্যাঙ্কগুলোর জমা–খরচের পরিস্থিতি কতটা শুধরোয়, অনুৎপাদিত সম্পদ কতটা পুনরুদ্ধার করা যায়, সেই জট কাটিয়ে ওঠার ওপর। আইএমএফ মনে করছে, ভারত যতটা দ্রুত এবং যত ব্যাপক উন্নতি করবে বলে বাকি বিশ্ব ভেবেছিল, ততটা হয়ত হচ্ছে না, কিন্তু আন্তর্জাতিক পরিস্থিতির তুলনায় ভারতের উন্নতির হার এখনও বেশ ভাল। ভারতের মতো বড় ও জনবহুল দেশের পক্ষে ৬% বৃদ্ধির হার যথেষ্ট ভাল বলতে হবে। এক প্রশ্নের জবাবে বলেছেন আইএমএফ–এর গবেষণা শাখার উপপ্রধান গিয়ান মারিয়া মেলেসি–ফেরেত্তি। এছাড়া আর্থিক ক্ষেত্রে কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যেমন কর্পোরেট করের হার কমানো। তাতে সুফল পাওয়া যাচ্ছে। রাজস্ব আদায় বাড়ছে। পরিস্থিতি বেশ আশাজনক। কিন্তু নিশ্চিন্ত থাকলে হবে না। আর্থিক ঘাটতি নিয়ন্ত্রণে রাখতেই হবে। কর্পোরেট কর কমানোর ফলে যে রাজস্ব ঘাটতি হবে, তা কী করে পূরণ করা হবে, সরকারকে ভাবতে হবে। এদিন সতর্ক করেছেন গীতা গোপীনাথ।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top