আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ গিলগিট–বাল্টিস্তান উপত্যকার ৩৬টি হিমবাহ হ্রদ গলে যাচ্ছে। তার মধ্যে ৭টি পরিস্থিতি অত্যন্ত ভয়াবহ। ইসলামাবাদে আয়োজিত একটি সম্মেলনে এই সমীক্ষা রিপোর্ট পেশ করেছে ফোকাস পাকিস্তান নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। সমীক্ষায় বলা হয়েছে, শিমশাল উপত্যকার খুর্দোপিন হিমবাহ ভেঙে উঠে গিয়ে একটি চোট হ্রদ তৈরি হয়েছে।

সেটি এখন জমে থাকলেও মার্চে গরম পড়তেই বরফ গলতে শুরু করলে এবং তা যদি ফেটে যায় তাহলে শিমশাল ফুটব্রিজের ক্ষতি হতে পারে। সম্মেলনে উপস্থিত গিলগিট–বাল্টিস্তান বিপর্যয় মোকাবিলা কর্তৃপক্ষ বা জিবিডিএ এব্যাপারে আগে থেকেই সংলগ্ন গ্রামগুলিকে সতর্ক করার উদ্যোগ নিয়েছে। এজন্য তারা ভূতত্ত্ববিদ এবং জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা কর্তৃপক্ষের সহায়তার আবেদন করেছে।

জিবিডিএ–র অভিযোগ, চায়না পাকিস্তান ইকোনমিক করিডোর বা সিপিইসি–র জন্যই গিলগিট–বাল্টিস্তানের আবহাওয়ায় এই বিশাল পরিবর্তন হয়েছে। এলাকায় জঙ্গল এবং পাহাড় কেটে ফেলা হয়েছে। দিনভর ভারী গাড়ি এবং মেশিন কাজ করছে। যার ফলে এলাকার তাপমাত্রা বেড়ে গিয়েছে এবং হিমবাহ গলতে শুরু করেছে।

শুধু শইমশাল উপত্যকাতেই তিনটি হিমবাহের একটি গলে গিয়ে হ্রদ হয়ে গিয়েছে এবং তা ক্রমশ আয়তনে বাড়ছে। গিলগিটের স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, সিপিইসি প্রকল্প শুরু হওয়ার সময় পরিবেশ নিয়ে কোনও সমীক্ষা করা হয়নি। এমনকি এখনও পরিবেশ রক্ষায় কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। যার ফলে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।        

জনপ্রিয়

Back To Top