আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌শীতল সম্পর্ক চলছিল বেশ কিছুদিন ধরেই। কিন্তু বুধবার সকালে হোয়াইট হাউসে যে এভাবে বজ্রপাত ঘটবে তা ভাবতে পারেনি স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্টও। সিদ্ধান্তটা অবশ্য মঙ্গলবারই নিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্টের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা গ্যারি কন। তিনি নিজের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। যা নিয়ে এখন রীতিমত হোয়াইট হাউস জুড়ে গুঞ্জন শুরু হয়ে হয়েছে। বাণিজ্যিক নীতি নিয়ে দুপক্ষের সম্পর্কের টানাপোড়েনেই এই ইস্তফা বলে খবর। 
হোয়াইট হাউস সূত্রে খবর, গ্যারি কন(‌৫৭)‌ ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্টের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের অধিকর্তা। সম্পর্কের অবনতি হয় ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত নিয়ে। যিনি লোহার ওপর ২৫ শতাংশ এবং অ্যালুমিনিয়ামের ওপর ১০ শতাংশ আমদানি শুল্ক বাড়িয়ে দেন। যদিও গ্যারির ইস্তফা নিয়ে কেউ মুখ খুলতে নারাজ। তাঁর চলে যাওয়ার সময় হয়েছিল বলেই তিনি ইস্তফা দিয়েছেন। এখন এই মন্তব্যই চাউর করা হচ্ছে। 
অবশেষে এই বিতর্কে জল ঢালতে আসরে নামতে হয়েছে স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্টকে। ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘‌গ্যারি আমার মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ছিলেন। খুব সুন্দরভাবে আমেরিকার অ্যাজেন্ডা নিয়ে কাজ করেছেন তিনি। কর সংস্কারে ঐতিহাসিক ভূমিকা নিয়েছিলেন তিনি। এরকম মেধাবি মানুষ খুব কম পাওয়া যায়।’‌ কিন্তু এত কিছুর পরও এই বিতর্ক আন্তর্জাতিক মহলে থেমে যাবে না বলেই মনে করা হচ্ছে। 

জনপ্রিয়

Back To Top