আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ খালি চোখে তাকে দেখা যায় না। মাপা দূর। বয়স বছরও পেরোয়নি। সেই একরত্তিই কেড়েছে দুনিয়ার ঘুম। তার থাবায় আহত অন্তত ৬০ লক্ষ। রোজ মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে কয়েক হাজার। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই করোনা ভাইরাসকে পাশে নিয়েই বেঁচে থাকা শিখতে হবে। আর অপেক্ষা করতে হবে টিকা আবিষ্কারের।
এবার সেই আবিষ্কারের পথেই এক ধাপ এগনো গেল। আশার কথা শোনালেন আমেরিকার ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা ফিজার–এর কর্তা। আশ্বাস, অক্টোবরের মধ্যেই বাজারে আসতে পারে করোনার টিকা। ইজরায়েলের একটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে সেই খবর। সংস্থাটি এখন জার্মান ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা বায়োএনটেক–এর সঙ্গে যৌথভাবে বেশ কয়েকটি ওষুধ আবিষ্কারের কাজ চালাচ্ছে। করোনা ভাইরাস প্রতিহত করার টিকাটি চিকিৎসকদের ছাড়পত্র পেয়েছে। এবার মানুষের শরীরে তার পরীক্ষা–নিরীক্ষা চলছে।  
শুধু ফিজার সংস্থা নয়, ইউকে–র ওষুধ প্রস্তুতকার সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকা দাবি করেছে, তারাও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের টিকা আবিষ্কার করার কাজে অনেকটাই এগিয়ে গেছে। সহায়তায় রয়েছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা। এ বছরের শেষেই মানুষের শরীরে প্রয়োগ করা যাবে সেই টিকা। শিম্পাঞ্জির সর্দি–জ্বরের কারণ হয় এমন অ্যাডিনোভাইরাসের সঙ্গে করোনার জিনগত বস৭তুর মিলন ঘটিয়ে টিকা তৈরির কাজ চালাচ্ছে তারা। তবে এই কাজে সবথেকে এগিয়ে মার্কিন সংস্থা মডার্না ইনক। তাদের টিকা ইতিমধ্যে আক্রান্তদের ওপর সফলভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে। এবার দ্বিতীয় পর্যায়ে ৬০০ জন সুস্থ মানুষের ওপর প্রয়োগ করা হবে। 

জনপ্রিয়

Back To Top