আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌মদের কারণেই লাগামছাড়া জীবন!‌ সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং–এর নিয়ম ভুলে নাইট ক্লাব, পার্টি!‌ ফের মদ বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল দক্ষিণ আফ্রিকা সরকার। রাতে কারফিউ, মুখে বাধ্যতামূলক মাস্ক এবং মদ্যপানহীন জীবন– করোনা ঠেকাতে এই তিনটি নিয়মের ওপর ভরসা করেই এগোতে চাইছেন প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা’র প্রশাসন। সরকারের দাবি, মদ বিক্রি বন্ধ হলে কম মানুষ বাইরে বেরবেন। কম লোকে আক্রান্ত হবেন। এতে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর চাপ কম পড়বে। পাশাপাশি রাস্তাঘাটে মদ খেয়ে মারামারি বা গার্হস্থ্য হিংসার মতো ঘটনা বেড়ে যাওয়াও মদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার অন্যতম কারণ বলে জানানো হয়েছে সরকারি সূত্রে। ইতিমধ্যেই দক্ষিণ আফ্রিকায় সংক্রামিতের সংখ্যা আড়াই লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে, যার মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪০০০ রোগীর। অনুমান, বছরের শেষে এই সংখ্যাটি ৫০ হাজার পেরিয়ে যেতে পারে। আক্রান্তদের মধ্যে অধিকাংশই গাওতেঙ প্রদেশের বাসিন্দা। এই গাওতেঙ প্রদেশকেই দক্ষিণ আফ্রিকার করোনাভাইরাসের এপিসেন্টার বলা হচ্ছে। লকডাউনের শুরুতে মদ বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলেও কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছিল। বিরোধীদের দাবি, ‘‌করোনা রুখতে ব্যর্থ এই সরকার। গদি বাঁচাতে সব দোষ মদের ওপর চাপাচ্ছে।’‌ টুইটারে একজন লেখেন, ‘‌মদ বিক্রি বন্ধ হলে দেশের অর্থনীতির কী হবে!‌’‌ 
 

জনপ্রিয়

Back To Top