আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ব্রাজিলে সম্ভাব্য করোনা প্রতিষেধকের ট্রায়ালে প্রাথমিক ফলাফলে উতরে গেল চীন। তাদের তৈরি সম্ভাব্য প্রতিষেধকটি মানব শরীরে প্রয়োগের পক্ষে নিরাপদ বলে জানিয়ে দিল সাওপাওলোর বুতানতান ইনস্টিটিউট। ব্রাজিলের বায়োমেডিক্যাল রিসার্ট সেন্টারগুলির মধ্যে শীর্ষে ওই সংস্থা। তবে চীনের তৈরি প্রতিষেধকটি কোভিড–১৯ ভাইরাসের বিরুদ্ধে কতটা কার্যকর, তা জানতে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছে তারা।
চীনের সিনোভ্যাক বায়োটেক সংস্থাটি করোনাভ্যাক নামের ওই সম্ভাব্য প্রতিষেধকটি তৈরি করেছে। তার দু’টি ডোজই করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর বলে দাবি ওই সংস্থার। তৃতীয় পর্যায়ে মানবদেহে সেটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চলছে ব্রাজিলে। ৯ হাজার স্বেচ্ছাসেবক তাতে অংশ নিয়েছেন। তারই প্রাথমিক রিপোর্টে করোনাভ্যাককে মানবদেহের পক্ষে নিরাপদ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।
বুতানতানের ডিরেক্টর দিমাস কোভাস বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত যতগুলি প্রতিষেধক পরীক্ষা করে দেখেছি আমরা, তার মধ্যে করোনাভ্যাকই সবচেয়ে নিরাপদ। গুণমানের বিচারেও বাকি প্রতিষেধকের চেয়ে ভাল সেটি।’ তবে মোট ১৩ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের শরীরে প্রতিষেধকটির প্রয়োগ সম্পূর্ণ হওয়ার পরই তার কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব বলে জানিয়েছেন তিনি। 
মাথাব্যথা, ক্লান্তিভাব ছাড়া করোনাভ্যাকের প্রয়োগে সে রকম গুরুতর কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি বলেও জানিয়েছেন দিমাস। তিনি জানান, ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে করোনাভ্যাক প্রয়োগ করার সময় ২০ শতাংশ স্বেচ্ছাসেবক ব্যথা অনুভব করেছেন। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর ১৫ শতাংশের মধ্যে মাথাব্যথা দেখা গিয়েছে। মাথা ঘুরে পড়ে গিয়েছেন ১০ শতাংশ। ৫ শতাংশেরও কম স্বেচ্ছাসেবকের মধ্যে ক্লান্তি দেখা গিয়েছে। পেশির যন্ত্রণাও অনুভব করেছেন কিছু মানুষ।
সাওপাওলোর স্বাস্থ্য সচিব জন গোরিনচেতিয়েনের জানিয়েছেন, করোনাভ্যাক প্রয়োগের পর মানব শরীরে ভাইরাস প্রতিরোধকারী অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক চললে এবছরের শেষ নাগাদ নিয়ন্ত্রক সংস্থার তরফে জনমানসে করোনাভ্যাক প্রয়োগে ছাড়পত্র মিলবে বলে আশাবাদী তিনি। আগামী বছর ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ পর্যন্ত সিনোভ্যাকের কাছ থেকে করোনাভ্যাকের ৬ কোটি ডোজ কেনার চুক্তি হয়েছে ব্রাজিলের। এছাড়াও, তুরস্ক এবং ইন্দোনেশিয়াতেও মানবদেহে করোনাভ্যাকের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চলছে। 

জনপ্রিয়

Back To Top