‌আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌চীনের সঙ্গে ভারতের শীতল সম্পর্ক চলছিলই। মাঝে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক কূটনৈতিকভাবে ভাল করার চেষ্টা করা হয়েছিল। দলাই লামার কোনও অনুষ্ঠানে ভারত সরকারের কোনও প্রতিনিধি থাকবে না বলেও সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু লোহা এবং অ্যালুমিনিয়াম ধাতুর দাম বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে মার্কিন প্রশাসন। তাতে চীনের প্রকল্প ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড সমস্যায় পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। আর এই ঘটনার পিছনে নরেন্দ্র মোদি–ডোনাল্ড ট্রাম্প সুমধুর সম্পর্ক দায়ী বলে মনে করে বেজিং। এই সম্পর্কই নেপথ্যে কলকাঠি নাড়ছে বলে তাদের ধারণা। কারণ এই প্রকল্পের বিরোধীতা করেছিল ভারত। এই সবকিছু নিয়েই ভারত ও আমেরিকাকে হুঁশিয়ারি দিল চীন। সোমবার চীন নিজেদের ২০১৮ সালের বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতে বরাদ্দ বহুগুন বাড়িয়ে দিল। ৮.‌১ শতাংশ প্রতিরক্ষা খাতে বাজেট বৃদ্ধি করায় আর্থিক অঙ্ক গিয়ে পৌঁছল ১৭৫ বিলিয়ন ডলার। যা কিনা ভারতের প্রতিরক্ষা খাতে বাজেট বরাদ্দের তিন গুন। গত আর্থিক বছরে যা ছিল ৭ শতাংশ। এই বরাদ্দ বৃদ্ধির ফলে আমেরিকার পর দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ চীন, যারা প্রতিরক্ষা খাতে এই বিপুল বরাদ্দ করছে। 
এই বাজেটের তথ্য অনুযায়ী জানা যাচ্ছে, আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রের সরঞ্জাম কিনতে, সেনাদের হাতে আরও উন্নত প্রযুক্তির অস্ত্র তুলে দিতে এবং বহুদূরে মিসাইল ছোঁড়ার ব্যবস্থা করতেই এই বাজেট বৃদ্ধি করা হয়েছে। 
২০১৬ সালে সংবাদ শিরোনাম হয়ে উঠেছিল ডোকা লা সমস্যা। যা নিয়ে দু’‌দেশের সীমান্ত সহ–সেনাবাহিনী তপ্ত হয়ে উঠেছিল। এবার যাতে ভারত–আমেরিকাকে সমঝে দিতে এই বাজেট বৃদ্ধি বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। কারণ এই বাজেটে ঘোষণা করা হয়েছে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং দেশের সেনাদের কমান্ডার ইন চিফ। তাঁর নির্দেশেই উন্নত করা হবে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বায়ুসেনা ক্ষেত্রগুলিকে।  ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top