শঙ্কা বাড়াচ্ছে ডেল্টা স্ট্রেন, ফের জটিল পরিস্থিতির সম্মুখীন চিন

আজকাল ওয়েবডেস্ক: করোনার উৎসস্থল হিসেবে যে দেশকে চিহ্নিত করছেন গোটা বিশ্বের অধিকাংশ বিজ্ঞানী, সেই দেশ করোনা সংক্রমণের তালিকায় ৯৯ স্থানে রয়েছে। কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেও শঙ্কা বাড়াচ্ছে করোনার ডেল্টা স্ট্রেন। চিনের সরকারি টিভি চ্যানেলে একটি সাক্ষাৎকারের অনুষ্ঠানে কয়েকজন চিকিৎসক একসঙ্গে জানিয়েছেন, করোনার নতুন প্রজাতিতে মানুষ আগের চেয়ে অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। উল্লেখযোগ্যভাবে দক্ষিণ-পূর্ব চিনের পরিস্থিতি জটিল হচ্ছে। চিকিৎসকেরা জানাচ্ছেন, ডেল্টা স্ট্রেনে করোনা সংক্রমণ হলে শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে খুব দ্রুত। আক্রান্তদের শরীরে ভাইরাসের সংখ্যাও আগের চেয়ে বেশি খুঁজে পাওয়া গেছে। নতুন উপসর্গ দেখা দেওয়ায় চিন্তিত চিকিৎসকেরাই। এমনকি প্রতি ৫ জন করোনা রোগীর মধ্যে ৪ জনের জ্বর হচ্ছে, যা সারতেও সময় লাগছে আগের তুলনায় বেশি। চিনের গুয়াংঝোউ শহরের সুন ইয়াৎ-সেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক্রিটিকাল কেয়ার মেডিসিন’ বিভাগের ডিরেক্টর গুয়ান শিয়াংডং সম্প্রতি জানিয়েছেন, ১২ শতাংশ করোনা রোগীর ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, তিন থেকে চারদিনের মাথায় পরিস্থিতি গুরুতর হচ্ছে। এমনকি ভাইরাস মুক্ত হতেও সময় লাগছে অনেকটা। ডেল্টা স্ট্রেন-কে ইতিমধ্যেই 'ভ্যারিয়্যান্ট অব কনসার্ন' তকমা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এই স্ট্রেনে সংক্রমণ বাড়ায় ব্রিটেনে ফের লকডাউন জারি করেছে সরকার। তবে উদ্বেগের কথা প্রকাশ করলেও, ডেল্টা স্ট্রেনে আক্রান্ত হয়েছেন কতজন, সেই তালিকা প্রকাশ করেনি চিন। এমনকি করোনা আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা গিয়েছেন কি না, তাও জানানো হয়নি সরকারপক্ষ থেকে। চিনা টিকা এই স্ট্রেনের বিরুদ্ধে আদৌ কার্যকর কি না, সেক্ষেত্রেও কোনও তথ্য প্রকাশ করেননি বিজ্ঞানীরা। অথচ চিনা টিকা নেওয়ার পর বিশ্বের একাধিক দেশে হাজার হাজার মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, এই রিপোর্ট আগেই পেশ করা হয়েছে।