আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মুখে এখনও হার স্বীকার করেননি। তবে জানিয়ে দিলেন, ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা করবেন তিনি। বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই আশ্বাসে স্বাভাবিকভাবেই স্বস্তিতে সদ্য নির্বাচিত বাইডেন প্রশাসন। সোমবার জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন মানল, বাইডেনই নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। 
ফল ঘোষণা হয়েছে বহু আগেই। তবু ট্রাম্প একের পর এক স্টেটের ফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে গেছেন আদালতে। ক্ষমতা হস্তান্তরে কোনও সাহায্যই করেননি। প্রয়োজনীয় গোয়েন্দা তথ্য সদ্য নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বাইডেনের কাছে পৌঁছতে দেননি। সরকারি তহবিল থেকে খরচের অনুমোদনও দেননি। যার জেরে বিপাকে পড়ে বাইডেন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের প্রশাসন।
এর পরেই ন’‌ জন রিপাবলিকান সেনেটর দাবি তোলেন, যে দেশের স্বার্থেই এখন ক্ষমতার হস্তান্তর হওয়া প্রয়োজন। নড়েচড়ে বসেন ট্রাম্প। জানিয়ে দেন, ‘‌আমি সুপারিশ করছি প্রটোকল মেনে এমিলি এবং তাঁর দল প্রয়োজনীয় সমস্ত কিছু করবে।’‌ এমিলি মারফি হলেন জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন–এর প্রধান।
ট্রাম্পের সবুজ সঙ্কেত পাওয়ার পর এমিলি চিঠি লেখেন বাইডেনকে। জানান, ১৯৬৩ সালের প্রেসিডেন্সি ট্রানজিশন আইনের তিন নম্বর ধারা মেনে ভোট–পরবর্তী সমস্ত পরিষেবা এবং তহবিল বাইডেন প্রশাসন ব্যবহার করতে পারবেন। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top