আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ নিয়ে যখন চাপ বৃদ্ধি করছে ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (‌এফএটিএফ)‌, তখন পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই রাওয়ালপিন্ডিতে জৈশ–ই–মহম্মদ জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে হাইভোল্টেজ বৈঠকে বসল। যা প্রকাশ্যে এসে পড়েছে। ইতিমধ্যেই পাকিস্তান সরকার এই জঙ্গি সংগঠনকে আশ্বস্ত করেছে ধীরে ধীরে তাদের ওপর থেকে বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হবে। যা আন্তর্জাতিক চাপে কার্যকর করতে হয়েছিল। 
এই খবর প্রকাশ্যে আসায় ভারতের দাবিতে সিলমোহর পড়ল। জৈশ প্রধান হাফিজ সৈয়দকে যে ১১ বছরের সাজা শোনানো হয়েছিল তা আসলে লোক দেখানো বলা হয়েছিল ভারতের পক্ষ থেকে। সেটা যে কতটা সঠিক এই বৈঠকের খবর প্রকাশ্যে আসতেই তা বোঝা যাচ্ছে। বৈঠকটি হয়েছে আইএসআই আধিকারিকদের সঙ্গে জৈশের অপারেশন কমান্ডার মুফতি আবদুল রউফ আসগরের সঙ্গে। এই বৈঠকে একদিকে যেমন বিধিনিষেধ ধীরে ধীরে তুলে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে তেমনি অন্যদিকে জম্মু–কাশ্মীরে লাগাতার জঙ্গি হামলা চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। 
এখানেই শেষ নয়। বৈঠকে জৈশকে বলা হয়েছে ভারতের ওপর হামলা এমন করে করতে হবে যাতে আন্তর্জাতিক নজর থেকে বেঁচে যাওয়া যায়। অর্থাৎ পাকিস্তান যেন আন্তর্জাতিক দেশগুলির রোষানলে না পড়ে। এমনকী জৈশকে কথা দেওয়া হয়েছে তারা যেমন আগে মাদ্রাসাগুলিতে কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছিল তা আবার শুরু করে দিতে পারে। তবে সেখানে ভারতের বিরুদ্ধে জিহাদ সংক্রান্ত পাঠ দেওয়া হোক। 
বালাকোট স্ট্রাইকের মাধ্যমে জৈশের জহ্গি ঘাঁটিগুলি গুঁড়িয়ে গিয়েছিল। সেগুলিকে ঠিকঠাক করা হয়েছে। ফলে আরও একবার জৈশ জঙ্গিরা সক্রিয় হয়ে উঠে জঙ্গি কার্যকলাপের প্রশিক্ষণ দিতে শুরু করেছে। এখন ২৭ জনের একটা জঙ্গি টিম তৈরি করেছে জৈশ। যেখানে তাদের শিক্ষা দেওয়া হয়েছে ভারতে অনুপ্রবেশ করে হামলা করার জন্য। আফগানিস্তানে থাকা জৈস জঙ্গিদের এখানে নিয়ে আসা হচ্ছে গোটা পরিকল্পনাটিকে বাস্তবায়িত করার জন্য। গোটা খবরটি পেয়েছে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা। সেই সূত্রেই এই খবর সামনে এসেছে। 

জনপ্রিয়

Back To Top