আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভারতবর্ষে করোনা ভাইরাস একদিন হয়ত প্রশমিত হবে, কিন্তু প্রায় তিনগুণ বাড়বে মদ্যপানের চাহিদা। বিশেষ করে পশিমবঙ্গ এবং উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যে। মদ্যপান এখন আর কোনও বিশেষ একটি সম্প্রদায়ের একচেটিয়া অধিকার নয়। লকডাউন উঠে গেলেই খুলবে মদের দোকান। আর তারপরই মদ্যপানের পরিমাণ আকাশছোঁয়া হবে। বিশেষ করে যুব সম্প্রদায়ের মধ্যে। ফলে বাড়বে সিরোসিস অফ লিভার এবং লিভার ক্যান্সারের আক্রান্তের সংখ্যা। 
তথ্য অনুযায়ী, ভারতের জনসংখ্যার ১৪.‌৬ শতাংশ মানুষ মদ্যপায়ী। যাঁদের বয়স ১০ থেকে ৭৫ বছর। সংখ্যাতত্ত্বের হিসেবে প্রায় ১৬ কোটি মানুষ। এবং পশ্চিমবঙ্গে ২০ শতাংশ মদ্যপায়ী লিভারের নানা অসুখে ভুগছেন। তাঁদের মধ্যে ১০ শতাংশ মানুষ লিভার সিরোসিসের রোগী। মদ্যপানের নিরিখে উত্তরপ্রদেশ প্রথম স্থানে আছে। এবং দ্বিতীয় স্থানে আছে পশ্চিমবঙ্গ। কিন্তু চিন্তার বিষয় হল, কমবয়সীদের মধ্যে মদ্যপানের ভিত্তিতে যদি দেখা হয়, তাহলে এরাজ্য দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানই অধিকার করে রয়েছে।
মেন্টাল হেলথ অ্যান্ড বিহেভেরিয়াল সায়েন্সের বিশষজ্ঞ ও গবেষক ডাঃ সঞ্জয় গর্গ বলেছেন, আমাদের দেশে মদ্যপানের অভ্যাসকে নৈতিক অবনতি হিসেবে ধরা হয়। কিন্তু তার থেকেও বড় বিষয় হল, মদ্যপান জনিত অসুখ। এই অসুখে সবচাইতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় লিভার এবং মস্তিষ্ক। সেদিকে নজর দেওয়াটাই তাই জন্য দরকারি। গ্যাসট্রোএন্টারোলজি বিভাগের ডাঃ দেবাশিষ দত্ত জানিয়েছেন, লিভারের অসুখ ধরা পড়লে মদ্যপায়ীরা মদ্যপান করা ছেড়ে দেন ঠিকই। কিন্তু একটু সুস্থ হওয়া সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর মধ্যে নেশার আকাঙ্ক্ষা আবার করে ফিরে আসে। তাকে রোধ করাটাই সবথেকে জরুরি। 

জনপ্রিয়

Back To Top