আজকালের প্রতিবেদন: সেরিব্রাল পলসি, স্নায়বিক কোনও সমস্যা, চেরা ঠোঁট বা তালু কারণে বহু শিশু খাবার চিবিয়ে খেতে পারে না। বড়দেরও বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার কারণে এই সমস্যা হয়।  শ্বাসনালীতে খাবার আটকে বিপত্তি বাধে। দীর্ঘদিন রাইলস টিউব দিয়ে খাওয়ানোর ফলে খাদ্যনালীতে যন্ত্রণা হয়। সংক্রমণও হয়। এই সমস্যার সমাধানে মিকি বাটন অনেকটাই কার্যকর বলে মত চিকিৎসকদের। ঠিকমত খাবার না খাওয়ায় শিশুর ওজন বাড়ে না। অথচ প্যালেট  অস্ত্রোপচার করতে গেলে অন্তত ১০ কেজি ওজনের প্রয়োজন, ক্লেফ্ট লিপের ক্ষেত্রে পাঁচ কেজি।  ৩–৪ মাসের মধ্যে অপারেশন করতে হয়।  অন্যদিকে শিশুর জন্মের এক বছরের মধ্যে অস্ত্রোপচার করা জরুরি। কথা ফুটে গেলে অস্ত্রোপচার করে খুব একটা লাভ হয় না। মিকি বাটন অস্ত্রোপচারের জন্য প্রস্তুত হতে সাহায্য করে।
সিএমআরআই হাসপাতালের শিশুশল্য চিকিৎসক শুভাশিস সাহা বলেন,‘‌ মিকি বাটন এমন একটা ছোট্ট ডিভাইস, যা পেটে চামড়ার ওপর দিয়ে লাগানো থাকে এবং সরাসরি পাকস্থলীর সঙ্গে যুক্ত করা হয়। স্নান, হাঁটাচলা সব স্বাভাবিকভাবে করা যায়। ল্যাপারোস্কোপির মাধ্যমে একবার এটি বসিয়ে নিলে এর মধ্য দিয়েই তরল ও অর্ধতরল খাবার সরাসরি পাকস্থলীতে চলে যায়। টিউবের মুখের ঢাকনা সহজেই খোলা বন্ধ করা যায়। ডিভাইস খুলতে কোনও ঝঞ্ঝাট নেই। দু’‌সপ্তাহ অন্তর  রাইলস টিউব বদলাতে  হয়। মিকি বাটন ৬ মাস অন্তর পরিবর্তন করতে হয়।’‌ ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top