আজকালের প্রতিবেদন: কলকাতায় দূষণের মাত্রা বাড়ছে। পেট্রোল ডিজেল থেকে ক্ষতিকর ধোঁয়া ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে, যা তামাকজাত দ্রব্য সেবনের সমান। যান চলাচলে নিয়ন্ত্রণ করে ট্রামের পরিষেবা এবং পরিবেশ বান্ধব গাড়ির ব্যবহার বাড়ানো উচিত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ইনস্টিটিউশন অফ পাবলিক হেলথ ইঞ্জিনিয়ারস (‌আইপিএইচই)‌ ইন্ডিয়ার আলোচনাসভায় রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের চেয়ারম্যান ডাঃ কল্যাণ রুদ্র বলেন,‘গত ৫০–৬০ বছরে মানুষের জীবনযাত্রার মানের অনেক উন্নতির সঙ্গে বেড়েছে দূষণের মাত্রা।‌ শিশু থেকে প্রবীণতম নাগরিক সকলেই কোনও না কোনওভাবে ভাবে আক্রান্ত।’‌ বক্ষরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ পার্থসারথি ভট্টাচার্য বলেন,‘‌বায়ু দূষণের মাত্রা বৃদ্ধির ফলে বাড়ছে হাঁপানি, ফুসফুসের ক্যান্সার।’‌ আইপিএইচই–র সভাপতি অধ্যাপক কে জে নাথ বলেন,‘‌ ট্রাম থেকে কোনও দূষণ ছড়ায় না, কাজেই এই পরিষেবা আরও বাড়ানো উচিত।’ বক্ষরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ রাজা ধর জানিয়েছেন,‘কলকাতার ৭০ ভাগ মানুষ বক্ষরোগের সমস্যায় ভুগছেন। ধূমপান করেন না এমন ব্যক্তিদেরও ফুসফুসের সমস্যা দেখা গিয়েছে।’‌  ন্যাশনাল অ্যালার্জি অ্যাজমা ব্রঙ্কাইটিস ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক সুস্মিতা রায়চৌধুরি বলেন,‘‌প্রাইভেট গাড়ির ব্যবহার কমিয়ে নিত্যদিন অফিস যাতায়তের জন্য বাস–ট্রাম–ট্রেনের ব্যবহার বাড়ানো উচিত। কম দূরত্বে সাইকেল ব্যবহার কিংবা হেঁটে যাতায়ত করলে ভাল।’ কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের আঞ্চলিক অধিকর্তা এ চট্টোপাধ্যায় বলেন,‘‌কলকাতাকে বাঁচাতে কিছু এলাকা নির্দিষ্ট করে প্রাইভেট গাড়ি নিষিদ্ধ করা দরকার।’‌ শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ সুমিতা সাহা বলেন, দূষণের জেরে শিশুদেরও মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। অধিকাংশ শিশুই ভুগছে হাঁপানি, শুকনো কফের সমস্যায় এমনকি কিডনি, লিভার ও মস্তিষ্কেও প্রভাব পড়ছে।’‌‌‌‌‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top