আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‘‌ক্ষুদা তো নেহি পর ক্ষুদা সে হো তুম’‌। এটা কোনও সিনেমার গান নয়। এটা তাঁদের জন্যই গাওয়া হয়েছে যাঁরা দিনের পর দিন মানুষের জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার কাজের সঙ্গে যুক্ত। তারপরও কোনও ভুল হয়ে গেলে মুখোমুখি হতে হয় অনেক কঠিন পরিস্থিতির। তারপরও সমাজের বুকে নিরলস কাজ করে যান তাঁরা। হ্যাঁ, তাঁরা চিকিৎসক। তাঁদেরও ব্যক্তিগত জীবন আছে। ইচ্ছা–অনিচ্ছা, সুখ–দুঃখ, আনন্দ অনেক সময়ই ত্যাগ করে তাঁরা এই সমাজের মানুষের জীবন বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন। কিন্তু তাঁদের জন্য পৃথকভাবে চিন্তাভাবনা ক’‌জনই বা করে থাকেন। ১ জুলাই চিকিৎসক দিবস। তাই তাঁদের সম্মান জানাতে অর্থনৈতিক পরিকল্পনা ও বিনিয়োগ সংস্থা হ্যাপিনেস ফ্যাক্টরি বিখ্যাত গায়ক শানকে দিয়ে গান গাইয়েছেন ‘‌ক্ষুদা তো নেহি পর ক্ষুদা সে হো তুম’‌। যার অর্থ ভগবান নয় তবে ভগবানেরই প্রতিরূপ তুমি।

 
সত্যিই তাই। মুমুর্ষু রোগীদের চিকিৎসা করে সুস্থ জীবন দিয়ে বাড়ি ফেরান তাঁরা। তাই আক্ষরিক অর্থে ভগবানের চেয়ে কিছু কম নন তাঁরা। হ্যাপিনেস ফ্যাক্টরির তৈরি মিউজিক ভিডিওতে সেই বার্তাই তুলে ধরা হয়েছে চিকিৎসকদের জন্য। এই সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা অমর পণ্ডিত একটি বইও লিখেছেন। যেখানে সারা দেশের ৮০ হাজার চিকিৎসক উপকৃত হন অর্থনৈতিক পরিকল্পনা ও বিনিয়োগ করার ক্ষেত্রে। তাই এই গানের মধ্যে দিয়ে আজ তাঁদের সম্মান জানানো হয়েছে। সংস্থার পক্ষ থেকে যখন এই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল গায়ক শানকে তখন তিনিও খুশি হয়েছিলেন। তাঁর মতে, ‘‌চিকিৎসকরা আমাদের কাছে ভগবানের থেকে কোনও অংশে কম নন। কারণ তাঁদের কাছে প্রধান হল রোগীরা। যাদের চিকিৎসা করতে গিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কেটে যায়। তাই চিকিৎসক দিবসে আমরা খুশি এভাবে তাঁদের মতো মহান ব্যক্তিদের সম্মান জানিয়ে। আমরা তাঁদের স্যালুট ও ধন্যবাদ জানাই। কারণ তাঁরাই বাস্তব জীবনের হিরো।’‌ এককথায় তাই বলতে হয়, ‘‌হ্যাপি ডক্টরস ডে’‌। 

জনপ্রিয়

Back To Top