Omicron: প্লাস্টিকে ৮ দিন, ত্বকে ২১ ঘণ্টা বেঁচে থাকে ওমিক্রন, আশঙ্কা প্রকাশ করে দাবি গবেষকদের

আজকাল ওয়েবডেস্ক: দক্ষিণ আফ্রিকায় খোঁজ পাওয়া করোনার নতুন রূপ ওমিক্রনকে 'উদ্বেগের কারণ' হিসেবে চিহ্নিত করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এই ভ্যারিয়েন্ট। করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের জন্য ওমিক্রনকেই দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। এর মাঝেই একদল গবেষক জানালেন, ওমিক্রন মানুষের ত্বকে এবং প্লাস্টিকে কতক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে। 
জাপানের কিয়োটো প্রিফেকচারাল ইউনিভার্সিটি অফ মেডিসিনের একটি গবেষক দল জানাচ্ছে, ত্বকের ওপরে ২১ ঘণ্টা এবং প্লাস্টিকের ওপরে ৮ দিনের বেশি সময় ধরে বেঁচে থাকে ওমিক্রন। ডেল্টার তুলনায় বেশি সময় ধরে বেঁচে থাকে বলেই হু হু করে ছড়াচ্ছে এর সংক্রমণ। গবেষণার পর তাঁরা আরও জানান, করোনার আগের ভ্যারিয়েন্টের তুলনায় অনেক বেশি সময় ধরে বেঁচে থাকে ওমিক্রন। 
গবেষণার পর তাঁরা জানাচ্ছেন, প্লাস্টিকের উপর করোনার মূল স্ট্রেন, যার খোঁজ পাওয়া গিয়েছিল উহানে, সেটি ৫৬ ঘণ্টা, আলফা ১৯১.৩ ঘণ্টা, বিটা ১৫৬ ঘণ্টা, গামা ৫৯.৩ ঘণ্টা, ডেল্টা ১১৪ ঘণ্টা বেঁচে থাকতে পারে। এদের তুলনায় ওমিক্রনের বেঁচে থাকার ক্ষমতা কয়েকগুণ বেশি। প্লাস্টিকে ওমিক্রন বাঁচতে পারে ১৯৩.৫ ঘণ্টা। অন্যদিকে মানবদেহের ত্বকের উপর মূল করোনা ভাইরাস ৮.৬ ঘণ্টা, আলফা ১৯.৬ ঘণ্টা, ১৯.১ ঘণ্টা বিটা, ১১ ঘণ্টা গামা, ১৬.৮ ঘণ্টা ডেল্টা বেঁচে থাকে। আর ওমিক্রন বাঁচতে পারে ২১.১ ঘণ্টার বেশি। এই কারণেই এর সংক্রমণ ছড়াচ্ছে দাবানলের মতো। এই কারণেই অ্যালকোহল যুক্ত স্যানিটাইজার ঘনঘন ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন তাঁরা। 

আকর্ষণীয় খবর