আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‘‌আমি হতবাক!‌’ ‌পাঠ্যক্রম থেকে গণতান্ত্রিক অধিকার, যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো এবং ধর্মনিরপেক্ষতার মতো বিষয় বাদ দেওয়ার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে কড়া সমালোচনা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির। 
রাষ্ট্রবিজ্ঞানের পাঠ্যক্রম থেকে ধর্মনিরপেক্ষতা, যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো, গণতান্ত্রিক অধিকারের মতো পরিচ্ছেদ বাদ দিয়ে দিল। মঙ্গলবার সেন্ট্রাল বোর্ড অফ সেকেন্ডারি এডুকেশন (‌সিবিএসই)‌ ঘোষণা করে, ২০২০–২১ শিক্ষাবর্ষে পড়ুয়াদের ওপর থেকে পাঠ্যক্রমের ভার অনেকটাই লাঘব করা হবে। তিনভাগের একভাগ পরিচ্ছেদ কমিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু প্রশ্ন এখানেই। একজন সংবেদনশীল নাগরিক হয়ে ওঠার জন্য যেই যেই বিষয়গুলো ছোটবেলা থেকেই পড়া দরকার, সেগুলিই বাদ দিল কেন কেন্দ্র?‌ ভারতের সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষতার কথা না জানলে বিদ্বেষহীন সুস্থ পরিবেশ তৈরি হবে কীভাবে!‌ কেবলমাত্র মমতা ব্যানার্জিই নন, কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পেছনে থাকা আসল কারণটিকে খোঁজার চেষ্টা করেছেন অনেকেই।
মমতা ব্যানার্জি জানালেন, তিনি এই সিদ্ধান্তের ঘোর সমালোচনা করছেন।‌ এবং মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। ‘‌কোনওভাবেই এই ধরণের বিষয়বস্তু পাঠ্যক্রম থেকে বাদ দেওয়া যাবে না।’
এর আগে ‌মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেছিলেন, কেন্দ্রের বিভিন্ন পদক্ষেপ যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোকে নষ্ট করছে। 

 

 

যেই পরবর্তী প্রজন্ম নির্বাচনে বোতাম টিপবে, তারা যদি এসমস্ত বিষয় সম্পর্কে অবগতই না হয়, তবে তো মুশকিল। এই প্রশ্নটি তুলে কংগ্রেসের শশী থারুর টুইট করলেন, ‘প্রত্যেকেরই উচিত এই বিষয়ে প্রশ্ন করা। কেন এই অধ্যায়গুলোকেই বাদ দেওয়া হল পাঠ্যক্রম থেকে? ‌তারা কি মনে করছেন, গণতন্ত্র, বৈচিত্র্য, ধর্মনিরপেক্ষতা এবং এই জাতীয় বিষয় পরবর্তী প্রজন্মের জন্য অপ্রয়োজনীয়?‌‌’‌
পড়ুয়াদের পড়ার চাপ কমাতে চায় সিবিএসই। সেজন্য একাদশ শ্রেণীর রাষ্ট্রবিজ্ঞানের পাঠ্যক্রম থেকে বাদ যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো, নাগরিকত্ব, জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা। ‘‌আঞ্চলিক সরকার’‌ নামাঙ্কিত পরিচ্ছেদ থেকে দু’‌টি বিভাগ বাদ যাচ্ছে। ‘‌কেন আঞ্চলিক সরকারের প্রয়োজন?‌’‌ এবং ‘‌ভারতে আঞ্চলিক সরকারের বৃদ্ধি’‌। 
দ্বাদশ শ্রেণীর রাষ্ট্রবিজ্ঞানের পাঠ্যক্রম থেকে বাদ যাচ্ছে ‘‌আধুনিক পৃথিবীতে নিরাপত্তা’‌, ‘‌পরিবেশ এবং প্রাকৃতিক সম্পদ’‌, ‘‌ভারতে সামাজিক এবং নব্য সামাজিক আন্দোলন’‌, ‘‌আঞ্চলিক আকাঙ্ক্ষা’‌। অর্থনীতি পাঠ্যক্রম থেকে বাদ পড়ছে ‘‌ভারতের আর্থিক উন্নয়নের প্রকৃতি বদল’‌, ‘‌পরিকল্পনা কমিশন এবং পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা’‌। ভারতের বিদেশনীতির পাঠ্যক্রমেও পড়েছে কোপ। পাকিস্তান, নেপাল, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমারের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের পরিচ্ছেদ আর পড়তে হবে না পড়ুয়াদের। 
নবম শ্রেণীর রাষ্ট্রবিজ্ঞানে আর পড়ানো হবে না গণতান্ত্রিক অধিকার, সংবিধানের প্রকৃতির মতো গুরুত্বপূর্ণ পরিচ্ছেদ। দশম শ্রেণীর পড়ুয়াদের আর পড়তে হবে না ‘‌গণতন্ত্রের চ্যালেঞ্জ’‌, ‘‌জাতি, বর্ণ ও লিঙ্গ’‌, ‘‌গণতন্ত্র এবং বৈচিত্র‌্য’‌–র মতো পরিচ্ছেদ। 

জনপ্রিয়

Back To Top