আজকালের প্রতিবেদন: বিজেপি সরকারের খসড়া জাতীয় শিক্ষানীতির তীব্র সমালোচনা করলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাস। একই সঙ্গে চয়েস বেসড ক্রেডিট সিস্টেম বা সিবিসিএস চালু নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের গান্ধী ভবনে সারা বাংলা সেভ এডুকেশন কমিটির ডাকা এক শিক্ষা সম্মেলনে জাতীয় শিক্ষা নীতি নিয়ে সুরঞ্জনবাবু বলেন, ‘‌এর ফলে শিক্ষার কেন্দ্রীয়করণ হবে। মার্কিনিকরণের প্রক্রিয়া শুরু হবে। শিক্ষার বেসরকারীকরণের উদ্যোগ বাড়বে।’‌ তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘‌যেখানে অক্সফোর্ড, কেমব্রিজের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সিবিসিএস নেই, বাৎসরিক পরীক্ষার ব্যবস্থা আছে সেখানে এদেশে সিবিসিএস কেন?‌’‌ তিনি আরও বলেন, ‘‌শিক্ষার যে আন্তর্জাতিকীকরণ করা হচ্ছে, তার মাধ্যমে আমরা যেন আরেক সাম্রাজবাদের শিকার না হই।’‌ সহ–উপাচার্য প্রদীপ ঘোষ বলেন, ‘‌এই শিক্ষা নীতিতে স্কুল শিক্ষা নিয়ে অনেক সমস্যার কথা বলা আছে। কিন্তু সমাধান নেই। এই নীতির ফলে স্কুল স্তরেও বেসরকারীকরণ প্রাধান্য পাবে।’‌ প্রসার ভারতীর প্রাক্তন সিইও জহর সরকার, প্রাক্তন উপাচর্য চন্দ্রশেখর চক্রবর্তী, মীরাতুন নাহার, কার্তিক সাহা, তরুণ নস্কর–সহ আরও অনেকেই খসড়া জাতীয় শিক্ষা নীতির সমালোচনা করেন। জহরবাবু বলেন, ‘‌এই শিক্ষা নীতি স্ববিরোধিতায় ভরা।’‌ এদিন চন্দ্রশেখর চক্রবর্তীকে সভাপতি ও তরুণ নস্করকে সম্পাদক করে ১৪৮ জনের নতুন সেভ এডুকেশন কমিটি গঠিত হয়। সাম্প্রতিক শিক্ষা, শিক্ষক ও ছাত্রদের ওপর পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে এদিনের সভায় প্রস্তাব গৃহীত হয়।‌

জনপ্রিয়

Back To Top