আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌মাথা ব্যাথা করলে এবার থেকে আর স্যারিডন খেয়ে আরাম পাওয়ার কথা ভুলে যান। দীর্ঘ আইনি লড়াইয়ের পর কেন্দ্র স্বাস্থ্য মন্ত্রক ৩২৮টি জনপ্রিয় ও পরিচিত ওষুধের উৎপাদন, বিক্রি এবং বন্টনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল। বুধবার থেকেই এই নির্দেশ কার্যকর হয়েছে। আর এই নিষিদ্ধ ওষুধের তালিকায় রয়েছে স্যারিডনের নামও।
স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে ,জানা গিয়েছে, স্যারিডন ছাড়াও রয়েছে ত্বকের মলম প্যানডার্ম, কম্বিনেশন ডায়বেটিসের ওষুধ গ্লুকোনর্ম পিজি এবং জীবনদায়ী ওষুধ লিউপিডিক্লক্স। গত দু’‌বছর ধরে স্বাস্থ্য মন্ত্রক এই ওষুধগুলি নিষিদ্ধ করার জন্য অনবরত লড়াই করছিল। কারণ এই ওষুধগুলি মোটেও স্বাস্থ্যকর নয়। ৩২৮টির সবকটি ওষুধই ফিক্সড ডোজ কম্বিনেশন অর্থাৎ দুই বা ততোধিক যৌগের মিশ্রণে তৈরি৷ এই মিশ্রিত ওষুধ নিয়ে বহুদিন ধরেই বিতর্ক চলছিল৷ রোগ সারানোর ক্ষমতা ও সুরক্ষার মাপকাঠিতে ব্যর্থ হয় ওষুধগুলি৷ ড্রাগ টেকনিক্যাল অ্যাডভাইসারি বোর্ড (‌ডিটিএবি)‌ তাদের রিপোর্টে ফিক্সড ডোজ ফর্মুলা নিয়ে প্রশ্ন তোলে এবং এই ওষুধগুলি মানুষের স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, বিপদ্দজনক। এমনকি সেখান থেকে বিষক্রিয়া হতে পারে বলে রিপোর্ট দেয় কেন্দ্রকে। 
এর আগেও ২০১৭ সালে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার সুরক্ষা মন্ত্রক ড্রাগস অ্যান্ড কসমেটিক্স অ্যাক্টের ২৬এ ধারায় ৩৪৪টি ফিক্সড ডোজ কম্বিনেশন ওষুধ বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল৷ তখন এই নিষেধাজ্ঞায় আপত্তি জানিয়েছিল একাধিক ওষুধ সংস্থা৷ তারা মামলা করে হাইকোর্টে৷ সেটি গড়ায় সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত৷ শীর্ষ আদালত ২০১৭ সালে ডিটিএবি–এর বিষয়টি খতিয়ে দেখে কেন্দ্রের কাছে রিপোর্ট জমা করার নির্দেশ দেয়৷ সেই রিপোর্টেও শতাধিক ওষুধ বাতিলের সুপারিশ করা হয়৷ বোর্ড জানায়, ৩২৮টি ওষুধে যে যৌগ ব্যবহার করা হচ্ছে তা মানবশরীরে পক্ষে ক্ষতিকারক৷ বোর্ড তখন সুপারিশ করে জনস্বার্থে ড্রাগস এন্ড কসমেটিক্স ধারা মেনে অবিলম্বে ৩২৮টি ওষুধের উৎপাদন, বিক্রি ও বণ্টন বন্ধ করে দেওয়া হোক৷ সেই রিপোর্টের উপর ভিত্তি করেই কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত৷

 

 


 

জনপ্রিয়

Back To Top