আজকাল ওয়েবডেস্ক: কিডনিতে স্টোন এখনকার দিনের এক খুবই পরিচিত রোগ। ভুলভাল খাওয়াদাওয়া এবং কম জলপানের জন্যই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই সমস্যা হয়। এটা জেনেও শরীরের প্রতি যত্ন নিই না আমরা। অনেকক্ষেত্রে পাথর জমলেও হলেও যন্ত্রণা হয় না, তাই চিকিৎসার ব্যাপারটা এড়িয়ে যাওয়া হয়। পাথর যখন বড় আকার ধারণ করে তখন মূত্রত্যাগে তা বাধার সৃষ্টি করে, আর এ সময়েই হয় অসহ্য যন্ত্রণা। কিডনিতে স্টোন হয়েছে কিনা তা কিছু লক্ষণে প্রকাশ পায়। কিছু ঘরোয়া প্রতিকারও আছে এর। তা নিয়েই এই প্রতিবেদন।

 
লক্ষণ: 
১) পাকস্থলীর কাছে পেটে অথবা পিঠে অসহ্য ব্যথা। 
২) ব্যথা কমছে না, বরং ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে। 
৩) মূত্রের সঙ্গে রক্ত পড়া। 
৪) বমি হওয়া অথবা বমিভাব
৫) মূত্রত্যাগের সময় জ্বালা হওয়ার অনুভূতি 

প্রতিকার
১) গম গাছের ঘাস থেকে বানানো রস কিডনির পাথর দূর করতে দারুণ ভাবে কাজ করে। এতে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট মূত্রনালীতে জমা হওয়া ক্যালসিয়ামকেও পরিষ্কার করে দেয়। 
২) তুলসী পাতার মধ্যে এমন উপাদান আছে যা শরীরে উপস্থিত ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রায় ভারসাম্য রক্ষা করে। এরফলে কিডিনিতে পাথর জমতেই পারে না। এর মধ্যে থাকা অ্যাসেটিক অ্যাসিড পাথরকে গলিয়ে দেয়। প্রতিদিন এক চা-চামচ তুলসী পাতার রস কিডনির পাথরের জন্য ব্রহ্মাস্ত্র। 
৩) পাতিলেবুর মধ্যে আছে সাইট্রেট যা মূত্রনালীত জমা ক্যালসিয়ামকে দূর করে পাথর গঠিত হওয়ার প্রক্রিয়াকে থামিয়ে দেয়। লেবু দু’ভাবে খাওয়া যেতে পারে, এক, খাবার পর সরবত বানিয়ে অথবা দৈনন্দিন খাদ্যের মধ্যে মিশিয়ে। 
এছাড়া প্রচুর পরিমাণে জল খাওয়ার কথা মোটামুটি সবাই জানেন। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার কথাও আগেই বলা হয়েছে।         
 

জনপ্রিয়

Back To Top