কৌশিক সরকার, বেজিং: বেজিং–‌এর প্রথম সারির বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গেংদান ইনস্টিটিউট অফ বেজিং ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজির সঙ্গে সমঝোতাপত্র স্বাক্ষরিত হল সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটির। শনিবার বেজিং–‌এ এই মউ স্বাক্ষর করেন গেংদান ইনস্টিটিউটের ডিন অফ হিউম্যানিটিজ ডঃ ক্রিস্টিনা লি ও সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটির আচার্য সত্যম রায়চৌধুরী। এই সমঝোতার মূল উদ্দেশ্য হল ছাত্র ও শিক্ষক আদান প্রদান। উল্লেখ্য, সিস্টার নিবেদিতা ইউনিভার্সিটির আন্তর্জাতিক পাঠ্যক্রমে ইতিমধ্যেই চালু হয়েছে বিভিন্ন বিদেশি ভাষা শিক্ষার স্কুল। সেখানে চীনা ভাষাও শেখানো হয়। এবার চীন থেকে শিক্ষকেরা আসবেন নিউ টাউনের ক্যাম্পাসে।
এর আগে বেজিং–‌এ ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম অফ এডুকেশনাল ইনোভেশন–‌এ বক্তব্য পেশ করেন সত্যম রায়চৌধুরী। ভারত থেকে একমাত্র তিনিই ছিলেন আমন্ত্রিত বক্তা। এছাড়া চীন, আমেরিকা, ব্রিটেন, সিঙ্গাপুর–সহ পৃথিবীর নানা দেশ থেকে বক্তারা যোগ দিয়েছিলেন। তঁার ভাষণের বিষয় ছিল ভারতীয় পটভূমিকায় শিল্প ও শিক্ষার মেলবন্ধন। আজকের দিনে ইন্ডাস্ট্রি অ্যাকাডেমিয়া ইন্টারফেস যে কতখানি গুরুত্বপূর্ণ এবং যে কোনও উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাফল্য যে নির্ভর করে এই বিষয়টির ওপর, তা প্রাঞ্জল ভাষায় ব্যাখ্যা করেন সত্যম রায়চৌধুরী। দীর্ঘ তিন দশকেরও বেশি শিক্ষা জগতের অভিজ্ঞতার আলোকে তিনি তুলে ধরেন কীভাবে টেকনো ইন্ডিয়া গ্রুপ–‌এর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রছাত্রীদের তৈরি করা হয় কাজের জগতে প্রবেশের উপযোগী করে। আন্তর্জাতিক এই আলোচনাসভায় উপস্থিত ছিলেন চীনের শিক্ষা জগতের বিশিষ্টজনেরা। ছিলেন বেজিং–‌এ ভারতীয় দূতাবাসের প্রতিনিধিরা।‌

জনপ্রিয়

Back To Top