আজকাল ওয়েবডেস্ক:  লকডাউনের জন্য বাকি থাকা দশম এবং দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষাগুলি কবে নেওয়া হবে সেব্যাপারে আগামী ২৩ তারিখ সিদ্ধান্ত নেবে সিবিএসই। অন্যদিকে আইসিএসই বোর্ডের বাকি থাকা পরীক্ষা কবে হবে সেব্যাপারে আগামী ২৪ তারিখ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ান স্কুল সার্টিফিকেট এক্সামিনেশন বা সিআইএসসিই। এবং তা না হলে বিকল্প ব্যবস্থার কথা আগামী ২২ তারিখের মধ্যে ছাত্রছাত্রীদের জানিয়ে দেওয়া হবে। কোভিড–১৯–এর জন্য বোর্ডের পরীক্ষা বাতিল করার আবেদন জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেছিলেন অভিভাবকরা। বুধবার সেই মামলার শুনানিতে সিবিএসই–র আইনজীবী রূপেশ কুমার শীর্ষ আদালতকে বলেন, এব্যাপারে খুব শিগগিরি সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আলোচনা চালাচ্ছে বোর্ড। এজন্য আদালতের কাছে আরও কিছুদিনের সময় চান তিনি। তারপরই আগামী ২৩ তারিখ এই মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে কমপক্ষে ১৫ লক্ষ পরীক্ষার্থীর আইসিএসই, সিবিএসি, আইএসসি–র বাকি থাকা পরীক্ষা দেওয়ার কথা। 
মঙ্গলবারই বর্তমান পরিস্থিতিতে এই শিক্ষাবর্ষের পরবর্তী কর্মসূচি নিয়ে স্কুল শিক্ষা এবং স্বারক্ষতা দপ্তরের সচিব অনিতা কারোয়াল, সিবিএসই–র চেয়ারম্যান মনোজ আহুজা এবং ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি বা এনটিএ–র ডিজি বিনীত জোশির সঙ্গে আলোচনা সারেন কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল নিশঙ্ক। চলতি পরিস্থিতিতে করোনা–আক্রান্ত রাজ্যগুলিও আইসিএসই, সিবিএসি, আইএসসি পরীক্ষা বাতিল করার দাবি জানিয়েছে কেন্দ্রের কাছে।
সোমবার সিআইএসসিই ঘোষণা করেছিল, বাকি থাকা পরীক্ষায় কোনও ছাত্রছাত্রী বসতে না চাইলে বিকল্প হিসেবে স্কুলের অ্যাসেসমেন্ট, স্কুলে হওয়া প্রি–বোর্ড পরীক্ষার ফল দেখেই তার ফলাফল দেওয়া হবে। সেব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে বুধবার বম্বে হাই কোর্টে মামলা করেন অভিভাবকরা এই মর্মে যে, সাধারণত স্কুলে হওয়া টেস্টের ফলাফল প্রায়শই অত্যন্ত কঠোর হয়। যার ভিত্তিতে কোনও ছাত্রছাত্রীর বোর্ডের ফলাফল বিচার করলে তা উল্টো আসতে পারে। এমনকি কিছু স্কুল ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষা দেওয়ার বিকল্প ব্যবস্থাটাই নিতে চাপ দিচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয়। তারপরই বুধবার সন্ধ্যায় সিআইএসসিই–র সিইও গ্যারি অ্যারাথুন বিজ্ঞপ্তি জারি করে     ঘোষণা করেন, স্কুলগুলির এধরনের কাজ মেনে নেওয়া হবে না। কোনও ছাত্রছাত্রীকে চাপ দিতে পারবে না স্কুলগুলি।       

জনপ্রিয়

Back To Top