আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ২০২০ সালে দেশে ক্যানসার আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ লক্ষ ৯০ হাজার। আগামী পাঁচ বছরে এই সংখ্যাটাই লাফিয়ে বাড়বে। ২০২৫ সালে দেশে ক্যানসার আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াবে ১৫ লক্ষ ৭০ হাজার। চলতি প্রবণতার ওপর ভিত্তি করে এই তথ্য জানাল একটি সরকারি সমীক্ষা।
ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ এবং দ্য ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডিজিজ ইনফরমেটিকস অ্যান্ড রিসার্চ যৌথভাবে ২০২০ সালের ন্যাশনাল ক্যানসার রেজিস্ট্রি প্রোগ্রাম রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। সেই রিপোর্ট অনুযায়ী, আগামী পাঁচ বছরে দেশে ক্যানসার আক্রান্তের হার বাড়বে ১২ শতাংশ। 
এই সমীক্ষায় জনসংখ্যার নিরিখে ক্যানসার আক্রান্তের সংখ্যা নথিভুক্তকরণের ২৮টি রিপোর্ট দেখা হয়েছে। সেই সঙ্গে ৫৮টি হাসপাতালে নথিভুক্ত হওয়া ক্যানসার আক্রান্তের সংখ্যার রিপোর্টও বিবেচনা করা হয়েছে। 
২০২০ সালে দেশে তামাকজাত দ্রব্য থেকে ক্যানসার আক্রান্তের সংখ্যা তিন লক্ষ ৭০ হাজার। মোট আক্রান্তের ২৭.‌১ শতাংশ। মহিলা আক্রান্তদের মধ্যে দু’‌ লক্ষেরই ব্রেস্ট ক্যানসার হয়েছে (‌১৪.‌৮ শতাংশ)‌। ৭৫ হাজার সার্ভিক্স ক্যানসারে ভুগছেন (‌৫.‌৪ শতাংশ)‌। ২ লক্ষ ৭০ হাজার পরিপাক তন্ত্রের ক্যানসারে আক্রান্ত। মোট আক্রান্তের মধ্যে ১৯.‌৭ শতাংশ এই ক্যানসারে ভুগছেন। 
তামাকজাত দ্রব্য থেকে ক্যানসার হওয়ার সংখ্যা সবথেকে বেশি দেশের উত্তর–পূর্বে। অবশ্যই পুরুষরাই বেশি আক্রান্ত। ফুসফুস, মুখ, স্টমাকে ক্যানসার হচ্ছে এই পুরুষদের। ব্রেস্ট আর সার্ভিক্স ক্যানসার মহিলাদের মধ্যে বেশি। সমীক্ষায় দেখা গেছে মহিলাদের মধ্যে ব্রেস্ট ক্যানসারের হার বেড়েছে। সে তুলনায় সার্ভিক্স ক্যানসার হওয়ার হার আগের থেকে অনেক কমেছে। তবে মস্তিষ্ক, গলা এবং ফুসফুসে ক্যানসার পুরুষ ও মহিলা উভয়ের মধ্যেই বেড়েছে। 
বিশেষজ্ঞদের মতে কোভিডের কারণে ক্যানসার থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার হার কমবে। বাড়বে মৃত্যুর হার। কারণ করোনার ভয়ে বেশিরভাগ মানুষ এখন হাসপাতালে যাওয়া এড়িয়ে চলছেন। তাই প্রাথমিক স্টেজে ক্যানসার ধরা পড়ছে না। ধরা পড়লেও চিকিৎসায় দেরি হচ্ছে। কারণ অনেক হাসপাতাল কোভিডের জন্য বরাদ্দ হয়েছে। ফলে ক্যানসার রোগীরা সঠিক সময় চিকিৎসা পরিষেবা পাচ্ছেন না। কেমোথেরাপি, রেডিওথেরাপিতেও দেরি হচ্ছে। চিন্তায় চিকিৎসকরা। 

জনপ্রিয়

Back To Top