আজকাল ওয়েবডেস্ক: সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি ভারতের প্রথম করোনা–প্রতিষেধক কোভ্যাক্সিন এবছরের শেষেই মিলবে। বৃহস্পতিবার একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এই দাবি করলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। নিজের মন্তব্যকে খোলসা করে মন্ত্রী বলেছেন, পরীক্ষানিরীক্ষার পর ভারতীয় প্রতিষেধক কোভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা সম্পর্কে এবছরের শেষেই জানতে পারবেন দেশবাসী। এছাড়া ভারত বায়োটেক এবং জাইডাস ক্যাডিলার প্রতিষেধক দুটির আরেক মাস সময় লাগবে উৎপাদনের জন্য এবং পর্যায়ক্রমে তা বাজারজাত করার জন্য। যদি পরীক্ষামূলক প্রক্রিয়া সফল হয় তাহলে ২০২১–এর প্রথম তিন মাসের মধ্যেই দেশীয় প্রতিষেধক দেশবাসীর ব্যবহারযোগ্য হয়ে উঠবে। কোভ্যাক্সিন সম্পর্কে মন্ত্রীর ব্যাখ্যা, এটা আসলে একটা নিষ্ক্রিয় প্রতিষেধক যা পুনের এনআইভি–তে সার্স–কোভি–২ থেকে পৃথক করা হয়েছিল। এই প্রতিষেধকই এবছরের শেষে আসবে বলে দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী।   
এদিকে সম্প্রতি জানা গিয়েছিল অক্সফোর্ডের তৈরি প্রতিষেদক কোভিশিল্ডও এবছরের শেষে হাতে পাবেন ভারতবাসী। সেসম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ওই সময়েই অক্সফোর্ডের প্রতিষেধকও আনার জন্য তা ইতিমধ্যেই তৈরি করা শুরু হয়ে গিয়েছে। কোভ্যাক্সিন তৈরি করছে আইসিএমআর এবং ভারত বায়োটেক যৌথভাবে। এছাড়া জাইডাস ক্যাডিলার জাইকোভি–ডি প্রতিষেধক এবং অক্সফোর্ড–অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রতিষেধক তেরি করছে সেরাম ইন্সটিটিউট অফ ইন্ডিয়া। এগুলোরও সারা দেশে পরীক্ষানিরীক্ষা চলছে। সূত্রের খবর, করোনা যুদ্ধের সামনের সারির যোদ্ধাদের কথা মাথায় রেখে প্রাথমিক পর্যায়ে সরকার ৫০ লক্ষ প্রতিষেধকের বরাত দেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে। 

জনপ্রিয়

Back To Top