সৌগত চক্রবর্তী: নন্দন চত্বর জুড়ে সাজ সাজ রব। পড়ছে রঙের নতুন প্রলেপ। ব্যানার আর পোস্টারে ছয়লাপ নন্দন চত্বর। আর তার মধ্যেই নন্দন চত্বরে বসেছে ‌ভাস্কর্য। যেখানে ক্যামেরা নিয়ে কাজে ব্যস্ত তিনটি মানুষ। দোতলার লবি নতুন করে সাজানো হয়েছে, বসেছে নতুন আলো। দেওয়াল জুড়ে সাজানো ১০০ বছরের বাংলাছবির পোস্টার আর একতলা সাজানো হয়েছে বাংলা ছবির অভিনেতা–‌‌অভিনেত্রীদের ছবি দিয়ে। আগামী ৯ নভেম্বর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত এই নন্দন চত্বরেই বসবে ২৫ তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের আসর। নন্দন চত্বরের পাশাপাশি নতুন সাজে সেজে উঠছে নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামও। কারণ, ৮ নভেম্বর এই মঞ্চেই তারকায় তারকায় ছয়লাপ হয়ে উঠবে এই চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধন অনুষ্ঠান। এবারেও সূচনা দিনে উপস্থিত থাকবেন অমিতাভ বচ্চন ও বাংলার ব্র‌্যান্ড অ্যাম্বাসাডর শাহরুখ খান। থাকার কথা সঞ্জয় দত্ত, শর্মিলা ঠাকুর ও রাখী গুলজারেরও। সূচনা দিনেই প্রদর্শিত হবে সত্যজিৎ রায়ের ছবি ‘‌গুপী গাইন বাঘা বাইন’‌, জানিয়েছেন এবারের চলচ্চিত্র উৎসবের চেয়ারম্যান রাজ চক্রবর্তী।
এবার উৎসবের ফোকাস কান্ট্রি জার্মানি। কাজেই জার্মানির একগুচ্ছ ছবি তো থাকবেই। পাশাপাশি বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে বাংলা ছবিকে। তথ্যচিত্র বিভাগে এবার বিশেষ আকর্ষণ হতে চলেছে সাগ্নিক চট্টোপাধ্যায়ের জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত ছবি ‘‌ফেলুদা:‌ ফিফটি ইয়ার্স অফ রে’‌জ ডিটেকটিভ’‌। এর আগেও অবশ্য নন্দনে প্রদর্শিত হয়েছিল এই ছবি। দর্শকের সমাদরও লাভ করেছিল।
এছাড়াও এশিয়ান সিলেক্ট নেটপ্যাক অ্যাওয়ার্ড বিভাগে থাকছে অভিজিৎ গুহ ও সুদেষ্ণা রায় পরিচালিত ছবি ‘‌শ্রাবণের ধারা’‌। ছবিতে অভিনয় করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, গার্গী রায়চৌধুরি প্রমুখ। মায়েস্ত্রো বিভাগে দেখানো হবে বুদ্ধদেব দাশগুপ্তর ছবি ‘‌উড়োজাহাজ’‌। ছবিতে দুটি মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন চন্দন রায়সান্যাল ও পার্ণো মিত্র। দেখানো হবে গৌতম ঘোষের ছবি ‘‌রাহগীর’‌। প্রফুল্ল রায়ের গল্প ‘‌বর্ষায় একদিন’‌ অবলম্বনে এই ছবির মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন আদিল হুসেন।
ভারতীয় ভাষার ছবির প্রতিযোগিতায় থাকছে দুটি বাংলা ছবি। গৌতম হালদার পরিচালিত ‘‌নির্বাণ’‌। মতি নন্দীর উপন্যাস ‘‌বিজলিবালার মুক্তি’‌ অবলম্বনে এই ছবি। থাকছে নবীন পরিচালক কৃষ্ণেন্দু দত্তর ‘‌ডুবুরি’‌, যিনি এর আগে ‘‌আজবডাঙ্গা’‌ বলে একটি ছবি তৈরি করেছেন, যা এখনও মুক্তি পায়নি।
এবার উৎসবের মূল আকর্ষণ নিঃসন্দেহে বিশেষ বিভাগ ‘‌শতবর্ষে’‌ বাংলা ছবি। সত্যজিৎ রায় বা ঋতুপর্ণ ঘোষের পাশাপাশি এই বিভাগে দেখানো হবে সমসাময়িক পরিচালকদের ছবিও। বিষয়েও থাকছে নানা রং। প্রদর্শিত হবে যাঁদের এই বছর বা আগামী বছর শতবর্ষ তাঁদের ছবি। দেখানো হবে ‘‌যমালয়ে জীবন্ত মানুষ’‌ বা ‘‌ভানু গোয়েন্দা জহর অ্যাসিস্ট্যান্ট’‌। দেখানো হবে ঋত্বিক ঘটকের ‘‌মেঘে ঢাকা তারা’‌। থাকছে জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে মান্না দে, অরবিন্দ মুখোপাধ্যায়, করুণা বন্দ্যোপাধ্যায়, জহর রায়দের প্রতি বিশেষ সম্মান জ্ঞাপন। ছবিতে বিশেষ শ্রদ্ধা জানানো হবে রবি ঘোষ,  তুলসী চক্রবর্তী, মলিনা দেবী, বাসু চট্টোপাধ্যায়, মৃণাল সেন, চিন্ময় রায়, রুমা গুহঠাকুরতা, স্বরূপ দত্ত, গিরিশ কারনাডকে। পাশাপাশি এই উৎসবেই দেখানো হবে সুব্রত সেনের ‘‌তবুও নন্দিনী’‌। এই ছবির মুখ্য দুটি চরিত্রে আছেন মীর ও স্বস্তিকা। থাকছে প্রবাসী পরিচালক ঋতুপর্ণা দাসের পূর্ণদৈর্ঘ্যের ছবি ‘‌ক্রান্তদর্শী’। সব মিলিয়ে এবারের কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব হয়ে উঠবে আরও চিত্তাকর্ষক ও বর্ণময়।‌‌‌‌

২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের আগে সেজে উঠছে নন্দনচত্বর। বসল তিন চলচ্চিত্রকারের ভাস্কর্য। নন্দনে, বৃহস্পতিবার। ছবি:‌ সুপ্রিয় নাগ

জনপ্রিয়

Back To Top