সৌগত চক্রবর্তী: সদ্য সকালের আলো ফুটেছে। সেই সময়েই দক্ষিণ কলকাতার একটা বাড়ির দোতলার টেরেসে একা একা দাঁড়িয়েছিলেন শৌভিক। মনটা একটু চিন্তা আর দুর্ভাবনায় ভরা। একটু পরেই কফি নিয়ে ঢুকলেন স্ত্রী নন্দিনী। আর স্ত্রীকে জানিয়ে দিলেন শৌভিক তাঁর সিদ্ধান্ত। এবার একটু দেশের বাড়ি থেকেই সপরিবারে ঘুরে আসবেন তাঁরা। আর কলকাতায় এই পরিস্থিতিতে থাকা যাচ্ছে না।
কিন্তু কেন শৌভিকের এই সিদ্ধান্ত?‌ কী পরিস্থিতির মুখোমুখি প্রতিনিয়ত হতে হচ্ছে তাঁদের?‌ স্ত্রী নন্দিনীই বা কী বললেন?‌ এই সব নিয়েই সম্প্রতি নিজের তৃতীয় ছবির শেষপর্বের শুটিং করলেন পরিচালক ইন্দ্রাশিস আচার্য। যাঁর ‘‌পিউপা’‌ গত বছর দর্শক ও সমালোচক মহলে বেশ প্রশংসিত হয়েছিল। তার আগে তাঁর পরিচালনায় ‘‌বিল্লু রাক্ষস’‌ও বেশ প্রশংসা পেয়েছিল। তাঁর এই নতুন ছবির নাম ‘‌দ্য পার্সেলস’‌। মুখ্য দুটি চরিত্রে অভিনয় করছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত ও শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। দক্ষিণ কলকাতার একটি বাড়িতে এঁদের নিয়েই কিছু দৃশ্যের শুটিং হল সম্প্রতি।
ইন্দ্রাশিস বললেন, ‘‌আমার ছবিতে সাধারণত কিছু সামাজিক সমস্যার কথা উঠে আসে। প্রথমে তা ব্যক্তিগত বা পারিবারিক সমস্যা হিসেবে থাকলেও পরে তার ব্যপ্তি আমাদের সমাজকে গ্রাস করে। আমার এই ছবিতেও তাই ঘটেছে। এক সুখী দম্পতির জীবনে বিঘ্ন এনে দিচ্ছে এক অজানা ব্যক্তির পাঠানো কিছু উপহার। আর তাই নিয়েই ধীরে ধীরে এই গল্প এগিয়ে যাচ্ছে থ্রিলারে।’‌
এই সুখী দম্পতির চরিত্রে অভিনয় করছেন শাশ্বত আর ঋতুপর্ণা। শাশ্বত জানালেন, ‘‌ছবিতে আমি আর ঋতুপর্ণা স্বামী-‌স্ত্রী।  শৌভিক আর নন্দিনী। দুজনেই ডাক্তার। আর এই প্রফেশনে যেমন হয়, নানান কেস, তার চিকিৎসা বা চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ এই সব নিয়ে ব্যতিব্যস্ত হয়ে থাকে। এমন সময়েই স্ত্রীর জন্মদিনে কোনও এক অজ্ঞাতকুলশীল ব্যক্তি একটা পার্সেল পাঠায়। আর বিভিন্ন সময়ে এই পার্সেল গুলো এই দম্পতির জীবনে একটা টেনশন সৃষ্টি করে। একে তো হাসপাতালের একটা টেনশন আর তার ওপর এই পার্সেলগুলো নিয়ে আর একটা টেনশন তাদের জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে। এই সব নিয়েই ছবিটা একটা থ্রিলারের আমেজ পায়।’‌ জানালেন, ‘‌আমি সবসময়েই নতুন পরিচালকদের সঙ্গে কাজ করতে ভালবাসি। এই বছরেই আমার এমন তিন-‌চারটে ছবি মুক্তি পাবে যেগুলোর পরিচালক নতুন। আর ইন্দ্রাশিসের সঙ্গে কাজ করে আমার ভালই লাগছে।’‌
আর ঋতুপর্ণা জানালেনে, ‌‘‌এই ছবি একটা সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার। আমি তো এই মূহূর্তে খুব ডিফারেন্ট জনারের ছবি করতে চাইছি। আমি চাইছি আমার অভিনয় সত্তার যে অংশটা এখনও এক্সপ্লোর করা বাকি আছে, সেটা নিয়ে কাজ করতে চাইছি।‌’‌ জানালেন, ‘‌ইন্দ্রাশিসের এই ছবি একটা ফিয়ার সাইকোসিস। একটা মানুষ বা পরিবারের মধ্যে ভয় ঢুকে গেলে কীভাবে তার পারিবারিক জীবনের বন্ধনগুলো ভাঙতে থাকে, ইন্দ্রাশিস সেই জায়গাটা ধরতে চেষ্টা করেছে।’‌ পাশাপাশি জানালেন, ‘‌ইন্দ্রাশিসের একটা সিনেমা বোধ রয়েছে। ওর তৈরি সংলাপ বা ওর গানের ব্যবহার বেশ অন্যরকম। এই ছবিতে একটা গানও গেয়েছি আমি।’‌
ঋতুপর্ণা বা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় ছাড়াও এই ছবিতে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন শ্রীলা মজুমদার, অম্বরীশ ভট্টাচার্য, দামিনী বেনী বসু প্রমুখ। ছবির সঙ্গীত করেছেন জয় সরকার।

ছবি:‌ বিপ্লব মৈত্র‌
 

জনপ্রিয়

Back To Top