অলক সরকার,শিলিগুড়ি: ফিল্ম মেকিং ডেস্টিনেশন হিসেবে এবার উত্তরবঙ্গকে তুলে ধরার উদ্যোগ শুরু হল। তবে সেটি স্রেফ টলিউডের ফিল্ম মেকিং ডেস্টিনেশন নয়, বরং গোটা দেশের অন্যতম ফিল্ম মেকিং ডেস্টিনেশন হিসেবে উত্তরের পাহাড়–‌‌জঙ্গলকে সামনে আনতে চায় খোদ ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া (‌এফএফআই)‌। তার জন্যই ২১ আগস্ট থেকে দেশের মধ্যে প্রথম শিলিগুড়ি শহরেই শুরু হয়েছে গ্লোবাল সিনেমা ফেস্টিভাল। শুধু এই ফেস্টিভালে আটকে না থেকে আয়োজকদের তরফে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে আরও গুরুত্বপূর্ণ কাজের। এই ফেস্টিভাল চলাকালীন দেশ–বিদেশের ৩৫ জন সিনেমা পরিচালককে তিনদিনের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে উত্তরবঙ্গের মনকাড়া সব জায়গায়। যেখানে অনায়াসে জাতীয় মানের সিনেমার শুটিংও করা সম্ভব। সেইসব স্পট দেখানোর পাশাপাশি পরিচালকদের আগ্রহী করে তোলা হবে, যাতে তাঁরা ভবিষ্যতে শুটিংয়ের জন্য উত্তরবঙ্গে আসেন। একইসঙ্গে স্বল্প বাজেটের সিনেমা পরিচালকদের যাতে প্রেক্ষাগৃহ পেতে সমস্যা না হয়, তার জন্য গোটা দেশে প্রায় তিন হাজার সিনেমা হল গড়ার পরিকল্পনা রয়েছে। সব প্রেক্ষাগৃহ যে খুব বড় মাপের হবে, এমন নয়। অল্প সংখ্যক দর্শক নিয়েও যেন সিনেমা চলতে পারে, সেদিকটিও মাথায় রাখা হয়েছে। তৈরি হবে অসংখ্য ‘‌মিনিপ্লেক্স’।
বুধবার গ্লোবাল সিনেমা ফেস্টিভাল করেই তাক লাগিয়ে দিয়েছে ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া। শিলিগুড়ির মতো দ্বিতীয় ক্যাটাগরির শহরে এমন বড় মাপের সিনে উৎসব হবে, সেটা কল্পনারও অতীত। এতে এই অঞ্চলের মানুষের কাছে সিনেমা নিয়ে আগ্রহ আরও বাড়বে। পাশাপাশি, রুপোলি পর্দার তারকাদের উত্তরবঙ্গে আনাগোনা শুরু হলে এই এলাকাও অনায়াসে দেশের মানচিত্রে আরও উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। পাহাড়, জঙ্গল মিলিয়ে এতটাই বৈচিত্র‌্য, সেই টানে অনেকেই শুটিংয়ের জন্য ছুটে আসে পারেন উত্তরবঙ্গে। পাশাপাশি সিনেমার হাত ধরে উত্তরবঙ্গের পর্যটনও অনেকটা এগিয়ে যেতে পারে। তাই একদিকে সিনেমার দর্শক বাড়ানো, অন্যদিকে উত্তরবঙ্গকে তুলে ধরা, এই দুটি দিকই মাথায় রাখছে রাজ্য সরকারও। দেশের নানা প্রান্ত থেকে আসা পরিচালকদের কালিম্পং, কার্শিয়াং, ডুয়ার্সের বিভিন্ন এলাকায় তিনদিন ধরে ঘোরানো হবে বলে জানালেন ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ার সভাপতি ফিরদৌসুল হাসান। একই কথা বললেন উৎসবের মুখ ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। 
এদিন সিনেমা ফেস্টিভালের ফাঁকে সংবাদমাধ্যম–‌সহ সাধারণের মুখোমুখি হয়েছিলেন এফএফআইয়ের কর্মকর্তা থেকে সিনেমা তারকারা। এঁদের মধ্যে ছিলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, গার্গী রায়চৌধুরী, স্বস্তিকা মুখার্জি, রজতাভ দত্ত, অন্তরা–‌সহ অনেকে। সেখানেই ফিরদৌসুল হাসান জানান পরিচালকদের উত্তরবঙ্গ ঘুরিয়ে দেখানোর কথা। অন্যদিকে, কম বাজেটে যাঁরা সিনেমা তৈরি করেন, অনেক সময় তাঁরা প্রেক্ষাগৃহ পান না। পেলেও দু’‌দিন না যেতেই সিনেমা সরিয়ে ফেলতে বলা হয়, নইলে টিকিট কিনতে বলা হয়। এ বিষয়ে উত্তর দিতে গিয়ে সভাপতি জানান, গোটা দেশে মাত্র ৮০০০ সিনেমা হল আছে। কিন্তু আমরা এই সংখ্যাটাকে ৩০ হাজারে নিয়ে যেতে চাই। বিভিন্ন রাজ্যের সঙ্গে কথা বলে সেখানে মাল্টিপ্লেক্সের ধাঁচে মিনিপ্লেক্স গড়ার ভাবনা রয়েছে। যেখানে ৭০–‌‌৮০টি আসন থাকবে। এতে সব সিনেমা পরিচালক তাঁর সিনেমা দেখানোর একটা জায়গা পাবেন। এদিন উৎসবে ‘‌মুখোমুখি’‌, আহারে, ৫ রুপাইয়া–‌সহ ৯টি সিনেমা দেখানো হয়।

শিলিগুড়িতে চলছে গ্লোবাল সিনেমা ফেস্টিভাল। সাংবাদিক সম্মেলনে শতরূপা সান্যাল, গার্গী রায়চৌধুরী, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, রজতাভ দত্ত। রয়েছেন ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ার সভাপতি ফিরদৌসুল হাসান, সহ–‌সভাপতি টি পি আগরওয়াল। ছবি:‌ শৌভিক দাস

জনপ্রিয়

Back To Top