অলোকপ্রসাদ চট্টোপাধ্যায়: • কোন স্কুলে পড়তেন আপনি?‌
•• দোলনা।
• স্কুলে ফার্স্ট হতেন?‌
•• সেকেন্ড হতাম। বালাজি সবসময় ফার্স্ট হত।
• ফার্স্ট হওয়ার জেদটা কি তখন থেকেই তৈরি হয়েছিল?‌
•• (‌‌হাসতে হাসতে)‌ প্রশ্নের উদ্দেশ্য, বিষয়টা পরিস্কার করলে ভাল হয় না?‌
• এই যে জাতীয় পুরস্কারে বাংলার মধ্যে ফার্স্ট হলেন, আগে জাতীয় স্তরেও হয়েছেন, পুরস্কার ঘোষণার আগে কি টেনশন ছিল ফার্স্ট হওয়া নিয়ে?‌
•• না, না। আমি জানতামই না কবে পুরস্কার ঘোষণা হবে। একটা মিটিং-‌এ ছিলাম। সেখানেই খবর পেলাম ‘‌এক যে ছিল রাজা’‌ সেরা বাংলা ছবির পুরস্কার পাচ্ছে। ‘‌চতুষ্কোণ’‌-‌এর পুরস্কার যখন ঘোষণা হয়, তখন ডাবিং করছিলাম। ‘‌জাতিস্মর’‌ যখন পুরস্কার পেল, ঘোষণার সময় আমি আমেরিকায় ট্যুর করছিলাম।
• কিন্তু, এটা তো ঘোষণার সময়ের ব্যাপার। ছবি তৈরির সময় কি মাথায় থাকে জাতীয় পুরস্কারের কথা?‌
•• জাতীয় পুরস্কার খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। খুব সম্মানের ব্যাপার। কিন্তু এটা মাথায় রেখে কাজ করি না।
• কিন্তু, ধরুন একই বছরে কৌশিক গাঙ্গুলিও ছবি করেছেন, আপনিও করেছেন। তখন কি টেনশন হয় যে কৌশিক পুরস্কারটা পাবেন, নাকি, আপনি?‌
• • দেখুন, টেনশন কথাটা বলবে না। একটা বছরে কী কী ছবি হচ্ছে খেয়াল রাখি। কোন ছবি পেতে পারে, সেটাও আমি খেয়াল রাখি। আর কৌশিক গাঙ্গুলির কথা বললেন বলে বলছি, হ্যঁা, আমাদের মধ্যে রাইভ্যালরি আছে, মিউচুয়াল রেসপেক্টও আছে। আগের বছরে যেমন ‘‌নগরকীর্তন’‌ দেখে আমার মনে হয়েছিল যোগ্য ছবিই পুরস্কার পেয়েছে।
• এবছর ‘‌উরি’‌ তো অনেকগুলো পুরস্কার পেল। যোগ্য ছবিই পেয়েছে বলে মনে হয়েছে?‌
•• দেখুন, সাউন্ডের পুরস্কারটা যোগ্য হয়েছে সন্দেহ নেই। কিন্তু এই ছবির জন্যে ভিকি কৌশল যে সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছেন, সেটা নিয়ে আমার প্রশ্ন আছে। ওর চেয়ে যিশু অনেকগুন বেটার অভিনয় করেছে ‘‌এক যে ছিল রাজা’‌য়।
• ছবি তৈরির সময় কোন জিনিসটা মাথায় থাকে, পুরস্কার, না বক্স অফিস?‌
•• আমার ছবি একই সঙ্গে ফেস্টিভ্যালেও পুরস্কৃত হয়েছে এবং বক্স অফিসেও সাফল্য পেয়েছে। বাংলা ছবিতে এটা আমার কন্ট্রিবিউশন বলেই মনে করি। ফেস্টিভ্যাল এবং বক্স অফিসের বেড়াটা আমি ভাঙতে পেরেছি।
• ছবি তৈরির সময় দর্শকদের ভাল লাগবে কী না, এটা কী মাথায় রেখে ছবি করেন?‌
•• এই ব্যাপারে আমি অত্যন্ত স্বার্থপর। আমি একমাত্র নিজের দিকে তাকিয়ে ছবি বানাই। নিজের যে ছবি করতে ভাল লাগে, সেটাই বানাই। ক’‌টা লোকের সেটা ভাল লাগবে, অ্যাওয়ার্ড পাবে কী না, এটা আমি মাথায় রাখি না।
• আপনার বেশ কয়েকটা সিনেমা নিয়ে কোনও কোনও সমালোচকের অভিযোগ যে সৃজিত পুরনো ছবির বিনির্মান করেন। এটা নিয়ে আপনার বক্তব্য কী?‌
•• দেখুন, বাংলা ছবির ক্ষেত্রে যদি উত্তমকুমার জড়িত থাকেন, তাহলে মানুষ সেটাতেই লিঙ্ক হয়ে পড়ে, আটকে পড়ে, মোহিত হয়ে থাকে। এই মোহ-‌টা ছাপিয়ে উঠতে পারেন না অনেকেই। আমার ‘‌এক যে ছিল রাজা’‌ নিয়ে কেউ কেউ বলেন এটা ‘‌সন্ন্যাসী রাজা’‌ থেকে তৈরি। কিন্তু এটা তো একটা ঐতিহাসিক কোর্ট কেস নিয়ে তৈরি ছবি। ‘‌জাতিস্মর’‌-‌এর মূলে আছে একটা সত্য ঘটনা। সেটা কী করে ‘‌অ্যান্টনি ফিরিঙ্গী’‌র বিনির্মান হয়?‌ আমার একমাত্র ছবি, যেটাকে আপনি বিনির্মান বলতে পারেন, সেটা ‘‌অটোগ্রাফ’‌। এটা একই সঙ্গে ‘‌নায়ক’‌ ছবিটার প্রতি ট্রিবিউট এবং বিনির্মান। আমার আর কোনও ছবিই আগের কোনও সিনেমার বিনির্মান নয়। আমি আলাদা আলাদা থিম নিয়ে প্রতিবার ছবি করি। আমি একজন কথক। গল্প বলাটাই আমার কাজ। আমি স্টোরি টেলার।
• তাহলে, গল্প, উপন্যাস লেখেন না কেন?‌
•• আমার উপন্যাসের স্ট্রাকচার হল চিত্রনাট্য। যখন ২৬ টা ছবি হয়ে যাবে তখন একটা বই লিখব—নাম দেব ‘‌এ টু জেড’‌।
• ‘‌এ টু জেড’‌ কেন?‌
•• আসলে ইংরেজি বর্ণমালার ২৬টা অক্ষরের অনেকগুলো নিয়েই আমি ছবি করে ফেলেছি। যেমন ‘‌এ’‌দিয়ে ‘‌অটোগ্রাফ’‌, ‘‌বি’‌ দিয়ে ‘‌বাইশে শ্রাবণ’, ‘‌জেড’‌ দিয়ে আছে ‘‌জুলফিকার’। মাঝখানে কয়েকটা অ্যালফাবেট বাকি আছে। যেমন ‘‌এফ’‌, যেমন ‘‌আই’‌। এমন কয়েকটা অক্ষর হয়ে গেলে ২৬টা ছবি হয়ে যাবে। ‘‌এ টু জেড’‌ সম্পূর্ণ হয়ে গেলে লিখব‌‌ জীবনের ‘‌এ টু জেড’‌।
• এমন হিসেব করে ছবি তৈরি করেন নাকি?‌ বর্ণমালা দিয়ে ছবির মালা তৈরি করছেন?‌
•• (‌হাসতে হাসতে)‌ তাই তো দেখা যাচ্ছে।
• এবার তো ‘‌বাইশে শ্রাবণ’‌-‌এর দুই চরিত্রকে ফিরিয়ে আনছেন নতুন ছবিতে?‌
•• হ্যাঁ, ‘‌গুমনামি বাবা’‌র কাজ শেষের পথে। পুজোয় মুক্তি পাবে। পুজোর পরে শুরু হবে ‘‌বাইশে শ্রাবণ’‌-‌এর অভিজিৎ, অমৃতাকে নিয়ে নতুন ছবি ‘‌দ্বিতীয় পুরুষ’‌।
• নিজের ছবির চরিত্রদের আবার টেনে আনছেন কেন নতুন ছবিতে?‌
•• দশ বছর হল ছবি করছি। পুরনোরা কেমন আছে, একটু খোঁজখবর নিচ্ছি। এই আর কি। তবে, আমি নিজেকে খুব একটা সিরিয়াসলি নিইনা। গল্প বলি। গল্প বলতে চাই। নিজেকে শোনাই। তারপর দর্শকদের কাছে আসি। এক গল্প থেকে অন্য গল্পে চলে যাই। সবটাই জীবনের গল্প।

ছবি:‌ সুপ্রিয় নাগ

জনপ্রিয়

Back To Top