আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‘প্রিয় ভারতের গণমাধ্যম সংস্থাগুলি, আপনাদের নিয়ে আমরা চিন্তিত। এখন ঠিক আছেন তো?‌ আপনাদের যত দেখছি অবাক হচ্ছি, চিন্তাও হচ্ছে। কীভাবে সাংবাদিকতার সমস্ত মূল্যবোধকে বিসর্জন দিয়ে ‘‌ডাইনি শিকার’‌ শুরু করলেন‌?‌ কীভাবে একজন যুবতীকে ক্যামেরা দিয়ে শারীরিক হেন‌স্থা করলেন?‌ কীভাবে কেবলমাত্র হেনস্থা করার জন্য এত পরিশ্রম করে ‘‌রিয়াকে ফাঁসাও’ অভিযান চালু করলেন?‌’‌
এক কথায় বললে, ‘‌খবরের শিকার করুন, মহিলাদের না।’‌ এই বক্তব্য দিয়ে খোলা চিঠিতে সই করলেন দেশের হাজার হাজার মানু্ষ। যাঁদের মধ্যে র‌য়েছেন, বলিউডের একাধিক তারকা। ‘‌ফেইনিস্ট ভয়সেস’ নামে একটি ব্লগে পোস্ট করা হয়েছে চিঠিটা। ভারতের সংবাদসংস্থাদের‌ উদ্দেশ্যে লেখা হয়েছে। যারা সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকেই রিয়া ও সুশান্তের সমস্ত ব্যক্তিগত ইস্যুর ওপর স্পটলাইট ফেলার চেষ্টা করে চলেছে। সুশান্তের বাবা পাটনায় এফআইআর দায়ের করার পরে যেন সুশান্তকে ভুলে কেবল রিয়া ও তাঁর পরিবারের ঘাড়ে চেপে বসল তারা। তদন্তে প্রয়োজন নয়, এমন কিছু ব্যক্তিগত তথ্যও সামনে আসতে লাগল। কেবল রিয়া চক্রবর্তীর চরিত্রহননের উদ্দেশ্যে। সুশান্তের মৃত্যুর পেছনে রিয়ার কোনও হাত ছিল বলে এখনওম প্রমাণ হয়নি। কিন্তু তাঁকে গ্রেপ্তার করা হল মাদক ব্যবহারের অভিযোগে। তারপর থেকে যেন উৎসব লেগেছে দেশে। অনেকদিন ধরেই এসমস্তের বিরুদ্ধে সরব হচ্ছিলেন বলিউড তারকারা। ‘‌মিডিয়া ট্রায়াল’‌–এর এই বাড়াবাড়ি আর সহ্য করতে না পেরে এবারে সরাসরি খোলা চিঠি লিখে সই সংগ্রহ শুরু হল। চিঠিতে দাবি জানানো হয়েছে, এই নোংরামো যেন জলদি বন্ধ করা হয়। 
বলিউডের তারকাদের মধ্যে রয়েছেন পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ, জোয়া আখতার, সোনাম কাপুর, গৌরী শিন্ডে প্রমুখ। এবং ৬০ টি সংস্থা এই চিঠির প্রচার চালাচ্ছে। 
‘‌একজন অবিবাহিত যুবতী তাঁর প্রেমিকের সঙ্গে থাকছেন। অবলা হওয়ার পরিবর্তে নিজের কথা সকলের সামনে রাখছেন। এসবের জন্যেই কি আরও বেশি করে আদালতের বিচারের আগেই তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করলেন আপনারা?‌ আমরা জানি, আপনারা সবসময়ে এরকম ব্যবহার করেন না। উদাহরণস্বরূপ, সলমন খান ও সঞ্জয় দত্তের বেলায় তো আপনারা অত্যন্ত আবেগতাড়িত হয়ে গিয়েছিলেন। তাঁদের পরিবারের কথা ভেবেছেন। সম্মান দিয়েছেন। কিন্তু একজন কমবয়সি মহিলা, যিনি কিনা এখনও আইনের চোখে অপরাধী নন, তাঁর চরিত্রহননে আপনারা তো উঠেপড়ে লেগেছেন। তাঁর গ্রেপ্তার হওয়াকে নিজেদের জয় হিসেবে দেখছেন আপনারা। কীসের জয়?‌ একজন যুবতী যিনি স্বাধীন এবং নিজের মতো করে জীবনাপন করতে চান, তাঁর পথ আটকানোটাই জয়?‌ জিডিপির হার কমে যাওয়া দেখানোর চাইতে, এভাবে টিআরপি আদায় করাই আপনাদের জন্য সুবিধার, তাই না?‌ যেখানে ‘‌বিষকন্যা’‌ বা ‘‌ডাইনি’‌ শিকারের জন্য কত কোটি মহিলার জীবন নষ্ট হয়ে গিয়েছে, সেখানে আপনারা এই ভূমিকাটিকেই বেছে নিলেন?‌’‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top