অলোকপ্রসাদ চট্টোপাধ্যায়: টালিগঞ্জ পাড়ায় সিনেমা এবং সিরিয়ালের শুটিং কবে শুরু হবে, এটা একটা বিরাট জিজ্ঞাসা চিহ্ন। শিল্পী, টেকনিশিয়ান থেকে শুরু করে প্রযোজক, চ্যানেল কর্তৃপক্ষ, সকলেই অনিশ্চয়তার মধ্যে আছেন। কীভাবে এগোনো হবে, পথ খোঁজার জন্যে রাজ্য সরকারের সঙ্গে সোমবার বৈঠকের কথা ছিল শিল্পী, টেকনিশিয়ান, প্রযোজকদের চারটি শীর্ষ সংগঠনের প্রতিনিধিদের। কিন্তু আমফান সারা শহর তছনছ করে দেওয়ায় মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের পক্ষে সম্ভব হয়নি বৈঠকে বসার। এই সপ্তাহের শেষ দিকে এই বৈঠক হওয়ার কথা। সেই বৈঠকেই একটা গাইড লাইন ঠিক হবে, কবে, কীভাবে শুটিং শুরু করা সম্ভব। করোনা–আবহে যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনেক লোকজন নিয়ে এখনই শুটিং শুরু করা যে খুব কঠিন, মানছেন আর্টিস্ট ফোরাম থেকে সিনে টেকনিশিয়ানদের সংগঠন ফেডারেশনের দায়িত্বপ্রাপ্তরা।
আর্টিস্ট ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অরিন্দম গাঙ্গুলি বললেন, আমফানের জন্যে সোমবার মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হল না। আগামী বৈঠকে সরকারের গাইড লাইন আমরা পাব। কিন্তু সব কিছু মেনে, সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং বজায় রেখে আদৌ কি এখন সিনেমা বা সিরিয়ালের শুটিং সম্ভব?‌ এই প্রশ্নটাই ভাবাচ্ছে অরিন্দমকে।
ফেডারেশনের সভাপতি স্বরূপ বিশ্বাস বললেন, শুটিং শুরুর আগে অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করা জরুরি। তারপর তো শুটিং শুরুর ব্যাপার। যেমন, প্রত্যেকটা স্টুডিও ‘‌ডিসইনফেক্ট’‌ করতে হবে। যথাযথভাবে স্টুডিওগুলোকে যেমন, তেমনই ক্যামেরা–সহ শুটিংয়ে ব্যবহৃত সমস্ত যন্ত্রপাতিকে জীবাণুযুক্ত করতে হবে। স্বরূপ বিশ্বাস বললেন, এখন তো প্রত্যেক সিনিয়র, জুনিয়র আর্টিস্টের জন্যে আলাদা মেকআপ ‘‌কিট’‌ বা ‘‌বক্স’‌ লাগবে। একজনের ব্যবহৃত পরচুল অন্যকে পরানো যাবে না। প্রত্যেকটা শিল্পী শুধু নন, প্রত্যেক টেকনিশিয়ানকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এই সব কিছুর জন্যেই কিন্তু প্রযোজকের খরচ বাড়বে বেশ কয়েকগুণ। আর সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং বজায় রেখে কীভাবে, কতটা শুটিং করা যাবে, সেটাও ভাবনার বিষয়। রাজ্য সরকারের সঙ্গে বৈঠকে প্রযোজকেরা নিশ্চয়ই তাঁদের প্রস্তাব পেশ করবেন।
স্বরূপ বিশ্বাস অবশ্য আর একটি গুরুতর সঙ্কটের কথা বললেন। এই লকডাউনের সময়ে টেকনিশিয়ানরা ৫০ দিনের ওপর তাঁদের পারিশ্রমিক পাননি চ্যানেল থেকে। স্বরূপ বললেন, আমরা ফেডারেশনের পক্ষ থেকে তাঁদের পাশে দাঁড়াচ্ছি। কিন্তু বহু অসহায় টেকনিশিয়ান এখন খুবই দুরবস্থার মধ্যে আছেন। আমরা চাই, অবিলম্বে তাঁদের প্রাপ্য টাকা চ্যানেলগুলো মিটিয়ে দিক। শুটিং শুরু করার আগে এটাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বলেই মনে করেন স্বরূপ বিশ্বাস। তিনি জানালেন, এ সপ্তাহেই সম্ভবত তাঁরা রাজ্য সরকারের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। আর্টিস্ট ফোরাম, ফেডারেশন ছাড়াও প্রযোজকদের সংগঠন ‘‌ইম্পা’‌ এবং ‘‌ডব্লিউএটিপি’‌‌র প্রতিনিধিরা এই বৈঠকে থাকবেন। রাজ্য সরকারের গাইড লাইন বা নির্দেশিকার ওপরেই অনেকটা নির্ভর করছে কবে এবং কীভাবে শুরু হতে পারে টালিগঞ্জের সিনেমা ও সিরিয়ালের শুটিং।‌

জনপ্রিয়

Back To Top