আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দীর্ঘ অসুস্থতার পর প্রয়াত হলেন সঙ্গীত শিল্পী রুমা গুহঠাকুরতা। সোমবার সকালে তাঁর বালিগঞ্জের বাড়িতে জীবনাবসান হয় এই প্রখ্যাত গায়িকা তথা অভিনেত্রীর। শুধুমাত্র সঙ্গীত নয়। অভিনয়ের ক্ষেত্রেও রুমা গুহঠাকুরতা মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। তাঁর প্রয়াণে বাঙালির সংস্কৃতিতে যে বিপুল পরিমাণ ক্ষতি হল তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷
জানা গিয়েছে, কিশোর কুমারের প্রথমপক্ষের স্ত্রী রুমা কিছুদিন ধরেই অসুস্থতার জেরে ছিলেন ছেলে অমিত কুমারের বাড়িতে। তারপর তিনি ফিরে আসেন কলকাতায়। সোমবার সকালেই তাঁর মৃত্যু সংবাদে শোকের ছায়া নেমে আসে। শুধুমাত্র তাঁর গানের সুরেই নয়, বাংলা চলচ্চিত্রের একাধিক ছবিতে অভিনয় করেও রুমা গুহঠাকুরতা জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছন।

অমৃত কুম্ভের সন্ধানে,অ্যান্টনি ফিরিঙ্গি,বালিকা বধূ ছবিতে তাঁর অভিনয় সমৃদ্ধ করেছে বাংলা চলচ্চিত্রকে।
এছাড়া আশিতে আসিও না, গণশত্রু, অভিযান, বাঘিনি, পলাতক, দাদার কীর্তি, হুইল চেয়ার তাঁর উল্লেখযোগ্য ছবি বলে গণ্য করা হয়৷ অভিনয়ের নিজস্বতা চিরকালই তাঁকে বাঙালিদের মনে এক আলাদা স্থান করে দিয়েছিল। কিশোর কুমারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের পর অরূপ গুহঠাকুরতার সঙ্গে বিয়ে হয় রুমার। ততদিনে তাঁর সন্তান অমিত কুমার বেড়ে উঠছিলেন মুম্বইতে। এরপর বেশিরভাগ সময়ই অরূপবাবুর সঙ্গেই থাকতেন রুমা। শেষজীবনে কলকাতার বাড়িতেই সময় কাটিয়েছেন বাংলার এই প্রবাদপ্রতীম শিল্পী। তখন থেকেই কলকাতা ইয়ুথ কেয়ারের প্রতি অক্লান্ত পরিশ্রম করে গিয়েছেন তিনি। 

জনপ্রিয়

Back To Top