আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সুশান্তের মৃত্যু আত্মহত্যা না খুন?‌ ফের এই বিতর্কে ঘি ঢাললেন বিজেপি নেত্রী রূপা গাঙ্গুলি। টুইটারে লিখলেন, ‘‌যদি তাঁর এক হাতের আঙুলে ক্যাডাভেরিক স্প্যাজম ধরা পড়ে, তাহলে কেবল একটি হাত দিয়ে তিনি এই কাজটি করলেন কীকরে?‌ এই নিয়ে তদন্ত হোক।’ ‘‌কাজটি’ বলতে তিনি গলায় দড়ি দেওয়ার ঘটনাকেই বোঝাতে চেয়েছেন। 

 

 

 

সুশান্তের মৃত্যুর পর একটি ভিডিও করা হয়েছিল, যা পরে ভাইরাল হয়ে যায় একটি উদ্ভট কারণে। ভিডিওতে দেখা যায়, পুলিশ তাঁর বাড়িতে পৌঁছেছে। একটি সাদা চাদরে সুশান্তের দেহ ঢাকা দেওয়া রয়েছে। তাঁর একটি হাত খাট থেকে নীচে ঝুলছে। আর তা অনাবৃত। ভিডিওর মাঝে খুব অস্পষ্টভাবে দেখা যায়, সুশান্তের একটি আঙুল নড়ে ওঠে। চিকিৎসকদের বক্তব্য, এই ঘটনাটিকে বলা হয় রিগর মর্টিস। মৃত্যুর তৃতীয় স্তর। কোনও ব্যক্তির মৃত্যুর পর পেশি শক্ত হয়ে যাওয়ার কারণে এরকম ঘটনা ঘটে থাকে। ক্যাডারভিক স্প্যাজমও এই জাতীয় একটি ঘটনা। ক্যাডারভিক স্প্যাজমের আর এক নাম পোস্টমর্টেম স্প্যাজম। মৃত্যুর পরে পেশির একটি বিশেষ অবস্থাকেই বলা হয় ক্যাডারভিক স্প্যাজম। কিন্তু অভিনেত্রী ও রাজনৈতিক নেত্রী সেকথা মানতে রাজি নন। তাঁর মতে, তাঁর হাতের পেশিতে আগে থেকেই এটি দেখা গিয়েছিল। তাহলে তিনি কীভাবে আত্মহত্যার প্রক্রিয়াটি ঘটাতে পারলেন। তিনি এই পোস্টে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে ট্যাগ করে লিখেছেন, গোয়েন্দা বিভাগকে যেন সুশান্তের মৃত্যুর ঘটনাটির তদন্তভার দেওয়া হয়। 

 

জনপ্রিয়

Back To Top